বেসরকারি একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন রমিজ ইসলাম। শনির আখড়া থেকে ধানমন্ডি যাওয়ার জন্য সকাল ৯টা থেকে উবার অ্যাপে বাইক সার্চ করেছেন অন্তত ২০ বার। কিন্তু বাইক পাননি। এক পর্যায়ে কন্ট্রাক্টে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

কন্ট্রাক্টে যেতে গিয়ে দেখেন অ্যাপে যেখানে ভাড়া দেখাচ্ছিল ২১৬ টাকা, সেখানে কন্ট্রাক্টে তার কাছে চাওয়া হচ্ছে ৩০০ টাকা। তবে শেষ পর্যন্ত অ্যাপে বাইক পান তিনি।

রমিজ ইসলাম নামে আরেকজন বলেন, ধানমন্ডি-১৫ তে যাওয়ার জন্য সকাল থেকে বাইক সার্চ করে যাচ্ছি, কিন্তু পাচ্ছি না। কন্ট্রাক্টে গেলে বাইক চালকরা অনেক বেশি ভাড়া চায়। অবশ্য তাদেরও বা দোষ দেই কী করে, গতকাল রাতে হঠাৎ তেলের দাম বাড়লেও অ্যাপগুলোতে আগের ভাড়া বহাল আছে। এটা তো তাদের জন্যও সমস্যা। এজন্য অনেকেই অ্যাপ বন্ধ করে কন্ট্রাক্টে যাচ্ছেন।

শুক্রবার রাতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার। এরপর আজ শনিবার সকাল থেকে রাজধানীতে দেখা দিয়েছে তীব্র গণপরিবহন সংকট। গণপরিবহন সংকটের পাশাপাশি রাইড শেয়ারিং অ্যাপগুলোতেও চলছে এক রকমের হাহাকার।

রমিজ ইসলামের মতো অনেক যাত্রীই অ্যাপে বাইক না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন। শহীদুল ইসলাম নামে একজন জানান, অ্যাপে ভাড়া ২৬০ টাকা এলেও কন্ট্র্যাক্টে তার কাছে ৪০০ টাকা চাচ্ছেন চালকরা।

মধ্যরাত থেকে জ্বালানি তেলের নতুন দাম কার্যকর হলেও রাইড শেয়ারিং অ্যাপগুলোতে আগের নিয়মেই ভাড়া নির্ধারিত হচ্ছে। এ নিয়ে অসন্তুষ্ট রাইড শেয়ারিংয়ের চালকরা।

ভাড়া বেশি চাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে উবার চালক তানভীর ইসলাম বলেন, অ্যাপে আগের ভাড়াই দেখাচ্ছে। কিন্তু তেলের দাম তো বেড়েছে। ২৬০ টাকার মধ্যে ১০০ টাকার বেশি যাবে তেল খরচ, এরপর কোম্পানিকে ২৫% হিসেবে দিতে হবে ৬৫ টাকা। আমার আর টাকা থাকবে কই!

তিনি আরও বলেন, তেলের দাম বাড়লেও অ্যাপে সার্চ করলে আগের ভাড়াই দেখাচ্ছে। এ কারণে আজ সকাল থেকে অ্যাপ বন্ধ করে দিয়েছে অনেকে। ১০০ বার সার্চ করেও বাইক পাওয়া যাচ্ছে না। সবাই কন্ট্রাক্টে যাচ্ছে। যদি আগের ভাড়া বহাল থাকে তাহলে বাইক চালকরা অ্যাপে যেতে পারবে না।

সুনীল কুমার নামে আরেক চালক বলেন, তেলের দাম বাড়ল, কিন্তু ভাড়া বাড়ানো হলো না। তাহলে আমরা অ্যাপে কিভাবে চালাব, বলেন!

তিনি বলেন, আগে শনির আখড়া থেকে গুলশান ২২০-২২৫ টাকা ছিল, তেলের দাম বাড়ানোর পরেও অ্যাপে যদি এই ভাড়াই আসে, তাহলে কীভাবে হবে! আমরা কেউ তো অ্যাপে চালাব না। যদি অ্যাপে ন্যায্য ভাড়া আসে তাহলে আমরা অ্যাপেই গাড়ি চালাব। আমাদেরও তো ইচ্ছে করে না ডেকে ডেকে যাত্রী তুলতে। কিন্তু অ্যাপ যদি আগের ভাড়াতেই চলে, তাহলে তো বিকল্প হিসেবে ডেকে ডেকে যাত্রী তুলতেই হবে। এখান (শনির আখড়া) থেকে গুলিস্তান অ্যাপে দেখাচ্ছে ৫০ টাকা, কন্ট্রাক্টে যাচ্ছি ১০০ টাকায়, তাহলে আমি অ্যাপ ব্যবহার করব কেন?

রাত ১২টার পর জ্বালানি তেলের নতুন দাম কার্যকর হয়েছে। ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা, পেট্রোলের দাম ৪৪ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা এবং অকটেনের দাম ৪৬ টাকা বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা করা হয়েছে।

বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের ঊর্ধ্বগতির কারণে পার্শ্ববর্তী দেশসহ বিভিন্ন দেশ নিয়মিত তেলের মূল্য সমন্বয় করেছে। ভারত গত ২২ মে থেকে কলকাতায় ডিজেলের মূল্য প্রতি লিটার ৯২.৭৬ রুপি এবং পেট্রোল লিটার প্রতি ১০৬.০৩ রুপি নির্ধারণ করেছে, যা এখনও বিদ্যমান রয়েছে।