হেলাল উদ্দিন: মেডিকেল কলেজে ভর্তিতে আদিবাসী কোটার আসন অ-আদিবাসীদের দখলে,২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ১ম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল গত ৪ এপ্রিল প্রকাশিত হয়। ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, আদিবাসী (উপজাতীয়) কোটায় বরাদ্দকৃত আসনে অ-আদিবাসীদের নির্বাচিত করেছে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। 
ভর্তি বিজ্ঞপ্তিতে আদিবাসী কোটার আসন বন্টন বিষয়ে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা রয়েছে।  আদিবাসী (উপজাতীয়) ও অ-আদিবাসী কোটায় মোট ৩৩টি (৩০+৩) আসন বরাদ্দ  রাখা হয়েছে। যার মধ্যে পার্বত্য তিন জেলার আদিবাসীদের জন্য ৯টি, পার্বত্য অ-আদিবাসীদের জন্য ৩টি, অন্যান্য জেলার আদিবাসীদের জন্য ৮টি, এবং রাঙ্গামাটি মেডিকেল কলেজের জন্য সংরক্ষিত ১৩টি আসন বরাদ্দ রাখা রয়েছে। 
কিন্তু ফলাফলে দেখা যায় যে, আদিবাসী কোটার আসনগুলোতে অ-আদিবাসীদের ভর্তির জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে। পার্বত্য ব্যতীত অন্যান্য জেলার আদিবাসী শিক্ষার্থীদের কোটায় (৭৭ কোড) নির্বাচিত ৮ জনের মধ্যে ৫ জনই বাঙালি। সমতলের আদিবাসী শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়েছে মাত্র ৩ জন। এদিকে তিন পাবর্ত্য জেলার অ-আদিবাসীদের জন্য মাত্র ৩ টি আসন বরাদ্দ থাকলেও মোট ৭ জনকে নির্বাচন করা হয়েছে। যার মধ্যে একজনকে রাঙামাটি জেলা আদিবাসী কোটায় বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তাদের জন্য বরাদ্দকৃত ৩ টি আসন সহ মোট ১২ বাঙালি শিক্ষার্থী আদিবাসী কোটায় ভর্তির জন্য নির্বাাচিত করা হয়েছে। এর ফলে মোট ৯ জন বাঙালি শিক্ষার্থী আদিবাসীদের জন্য বরাদ্দকৃত আসন দখল করে নেওয়ায় সমতলের ৫ জন আদিবাসী শিক্ষার্থী সহ মোট ৯জন আদিবাসী শিক্ষার্থী মেডিকেল কলেজে ভর্তিতে বঞ্চিত হচ্ছে। 
আদিবাসী কোটায় অ-আদিবাসীরা কিভাবে স্থান পায়? বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার । এ বিষয়ে জাতীয় আদিবাসী পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লেখক বিভূতিভূষণ মাহাতো বলেন,আমরা আদিবাসীরা বুঝতেই পারছি না আদিবাসী কোটায় আদিবাসীদের ব্যতীত অন্য কেউ সুযোগ পায় কিভাবে আদিবাসীদের ন্যায্য অধিকারগুলো এভাবেই বেহাত হচ্ছে। আদিবাসী কোটায় শুধুমাত্র আদিবাসীদেরকেই বরাদ্দ দিতে হবে।