সাভার প্রতিনিধি: সাভারের আশুলিয়ায় ‘নয়ন জুলি’ খাল উদ্ধারে পরিদর্শন করেছেন সাভার উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ রাজনৈতিক নেতারা।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকার এই খাল পরিদর্শন করেন তারা।
পরিদর্শন শেষে সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব বলেন, বিভিন্ন কারখানার পানি নিষ্কাশন না করে তারা দূষিত পানি ড্রেন ছেড়ে দেয়। এতে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কে পানি জমে যায়। এই এলাকার পানি কিষ্কাশনের জন্য যে নয়ন জুলি খাল। আমরা সবাই জানি এই খালটি একটি ঐতিহ্যবাহি খাল। এই খালটিকে সম্পূর্ন অন্যায় ভাবে ও অবিবেচকের মত কিছু কারখানার মালিক, বসত বাড়ির মালিক ভরাট করে স্থাপনা তৈরি করেছে। তাদের অর্থনৈতিক ফাইদা নেওয়ার জন্য এসব স্থাপনা তৈরি করেছে। জনস্বার্থে এই খাল আমরা উদ্ধার করবো।

সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাজহারুল ইসলাম বলেন, আমরা এই খাল উদ্ধারে এখন টিম ওয়ার্ক করছি। পরিকল্পনা মতই আমরা আগাচ্ছি। আমরা সিএস ও এসএ রেকর্ডের ভিত্তিতে এই উদ্ধার অভিযানে চালাবো৷ এই খালটিকে একটি প্রবাহিত খাল হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হবে।

সড়ক ও জনপদের ঢাকা নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ শামীম আল মামুন, এই খালটি অবৈধ স্থাপনা ও ময়লা আবর্জনা ফেলার কারণে ভরাট হয়ে গেছে। এছাড়া আমাদের টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের উপর বিভিন্ন কারখানার তাদের পানি ড্রেন ছেড়ে দেয়। এতে করে সড়কে পানি জন্য রাস্তা নষ্ট হয় ও রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। আজ আমরা পরিদর্শন করেছি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেল সহকারী ভূমি কমিশনার আনোয়ার হোসেন, জাতীয় শ্রমিক লীগ আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ঠিকাদার জনাব মো: লায়ন ইমাম ও ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবু তাহের মৃর্ধাসহ আরও অনেকই।