সাভার-আশুলিয়া প্রতিনিধি: ঢাকার আশুলিয়ায় জিরাবো এলাকায় অবস্থিত জিরাবো দেওয়ান ইদ্রিস কলেজের অপরিকল্পিত দেয়ালের কারনে পানি বন্দি হয়ে ভেগান্তি পোহাচ্ছে উক্ত এলাকার হাজারো পরিবার।

মঙ্গলবার সরে জমিনে গিয়ে দেখাযায়, ওই এলাকার কলেজের সাথেই অবস্থিত জিরাবো উচ্চ বিদ্যালয় এবং একটি মাদ্রাসা। এই দুইটি প্রতিষ্ঠানের মাট পানিতে ডুবে রয়েছে এতে করে ভোগান্তি পোহাচ্ছে প্রতিষ্ঠান সহ আশ- পাশের হাজারো পরিবার। অনেকের ঘরে পানি ঢুকে ক্ষয়ক্ষতিও হয়েছে ব্যাপক। অনেকে আবার বাধ্য হয়ে বাসাও ছেড়ে চলে যাচ্ছে অন্য জায়গায়।

উক্ত এলাকার এক বাড়ির মালিক এমারত হোসেন জানান, আমারা দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকায় বসবাস করে আসছি। আমাদের বাড়ির পাশ দিয়েই একটি বিল রয়েছে সে কারণে কখনো আমাদের পানি আটকে থাকে না, কিছুদিন যাবৎ অপরিকল্পিতভাবে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না করে কলেজের প্রাচীরটি দেওয়ার কারনে সামান্য বৃষ্টিতেই পানিতে প্লাবিত হয়ে আমাদের ঘরবাড়ি ডুবে যায় এমনকি ঘরে পানি ঢোকার কারনে সব বাড়াটিয়া চলে গেছে আমরা কোথাও এর সমাধান পাচ্ছি না।

এ বিষয়ে উক্ত এলাকার স্থানীয় নেতা সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও জিরাবো উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি দেওয়ান মেহেদী মাসুদ মঞ্জু জানান, মানুষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষা অর্জন করে আর এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লোকজনই যদি অশিক্ষিত মানুষের মত কাজ করে তাহলে দেশ চলবে কিভাবে, জাতি তাদের কাছথেকে কিভাবে ভাল কিছু শিখবে। এই প্রাচিরটি দেওয়ার সময় বার বার বলেছি কিন্তু তারা কোন আমলে নেয়নি, আজকে তাদের এই ভূলের কারনে পানি বন্দি হয়ে ভোগান্তি পোহাচ্ছে এই এলাকার সাধারন মানুষ সহ কলকারখানার খেটে খাওয়া মানুষ। আমি মনে করি উক্ত কলেজের দায়িত্বে যারা রয়েছে খুব দ্রুতই এর একটা সমাধান করে দিবে।

এ ব্যাপারে সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাজহারুল ইসলাম জানান, এইগুলো যেহেতু স্কুল এবং কলেজের বিষয় এটা তারাই সমাধান করবে। আমি উক্ত কলেজের প্রিন্সিপালকে বলে দিচ্ছি যাতে করে দ্রুত সময়ে বিষয়টি সমাধান হয়। তাছাড়া যদি আমার নাম ব্যাবহার করে কোন সাধারণ মানুষকে ভয় দেখায় তাহলে সেটা অপরাধ। এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটলে আমি আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করব।