সোহেল মিয়া, কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি: গুলিস্তান-নবাবগঞ্জ রোডের রোহিতপুরে প্রতিবন্ধী নারীকে চলন্ত গাড়ী থেকে ফেলে দেয়ার ঘটনায় দেশ জুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

চালক, হেলপারের ২ দিন রিমান্ড মঞ্জুরের পাশাপাশি বাসটি আটকের পরও এই রাস্তায় চলাচলকারী যাত্রীদের মনে স্বস্তি নেই। ছোট রাস্তায় বিশাল দেহী গাড়ীতে প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। 

গত ৭ মার্চ (রোববার) ওই প্রতিবন্ধী নারীর অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় চাপা পড়ে আরও একটি ঘটনা। 

একইদিন বিকেলে রোহিতপুর বাজারে এক বাইক চালককে চাপা দেয় এন মল্লিক পরিবহনের একটি বাস। 

বাসার চাপায় আহত হয়ে বিছানায় পড়ে আছেন উপজেলার নতুন সোনাকান্দা গ্রামের তাহের আলী মাদবরের ছেলে শাহ আলী। তার সাথে থাকা এপাচি বাইকটি বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আহত শাহ আলী জানান, আমি আমার কর্মস্থল থেকে বাসা ফিরছিলাম, একই সময় গুলিস্তান থেকে ছেড়ে আসা এন মল্লিক পরিবহনের ঢাকা মেট্রো ব১১-৬৩৩৫ বাসটি আমাকে সামনে থেকে চাপা দেয়। 

এ সময় আমার মোটরসাইকেলের পাদানিটি গাড়ীর সামনে আটকে গেলে আমার মোটরসাইকেলসহ আমাকে ধাক্কাতে ধাক্কাতে কয়েক গজ দূরে নিয়ে যায়। পরে লোকজন এসে আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি গাড়ীটিও আটক করে। 

পরে যাত্রীদের কথা বিবেচনা করে শর্তসাপেক্ষে গাড়ীটি ছেড়ে দেয়া হলেও তারা এখনো পর্যন্ত আমার সাথে যোগাযোগ করেনি। আমি আছি নাকি মরে গেছি জানতে চায়নি। এর পর থেকে বিছানায় পড়ে আছি। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ নিয়ে কোম্পানির কারো সাথে যোগাযোগ করাও সম্ভব হয়নি। এবং থানায় কোন অভিযোগও  হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী মাইনুল ইসলাম পিপিএম। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থার কথাও জানান এই কর্মকর্তা।