খেলা ডেস্ক : গত আগস্টে বাংলাদেশি প্রবাসীদের উপস্থিতিতে ফ্লোরিডার সেন্ট্রাল রিজওনাল পার্ক স্টেডিয়াম পরিণত হয়েছিল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। বিপুল বাংলাদেশি দর্শকের উপস্থিতিতে সাকিবরা সিরিজটা জিতেছিলেন ২-১ ব্যবধানে। কাল মিরপুর হবে ফ্লোরিডা?

গত আগস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে বাংলাদেশ যায় ফ্লোরিডায়। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল গেল যুক্তরাষ্ট্রে খেলতে। তাদের সঙ্গে গেল যেন একটা বাংলাদেশও।

বাংলাদেশ দলের সৌজন্যে বাঙালিদের বিশাল মিলনমেলাই হয়ে গেল ফ্লোরিডার সেন্ট্রাল রিজওনাল পার্ক। শুধু তো ফ্লোরিডা নয়, যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে আসা প্রবাসীদের উপস্থিতিতে সেন্ট্রাল রিজওনাল পার্ক স্টেডিয়াম আর বিদেশের মাঠ মনে হয়নি, মনে হয়েছে বাংলাদেশ যেন খেলছে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। দর্শকদের অনুপ্রেরণায় বাংলাদেশ উঠল গা ঝাড়া দিয়ে। উইন্ডিজকে টানা দুই ম্যাচে হারিয়ে সিরিজটা জিতে নিল ২-১ ব্যবধানে।

সেদিন যেমন বারবার বলা হচ্ছিল, ফ্লোরিডার সেন্ট্রাল রিজওনাল পার্ক পরিণত হয়েছে মিরপুরে। এখন ঠিক বলা হচ্ছে, ফ্লোরিডা হবে মিরপুর? ফ্লোরিডায় বাংলাদেশ যেভাবে টানা দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ জিতেছিল, একইভাবে বাংলাদেশ পারবে কাল মিরপুরের ‘ফাইনাল’টা জিততে? সিরিজে সমতায় ফিরে সাকিব আশা দিয়েছেন, অসম্ভব কিছুই নয়, ‘সম্ভাবনা তো আছেই। এই কন্ডিশনটা ওদের চেয়ে আমাদের বেশি পক্ষে থাকা উচিত। আমরা এখানে সব সময় ম্যাচ খেলি, আমাদের প্রতিটা খেলোয়াড় অসংখ্য ম্যাচ খেলেছে এখানে, ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক মিলিয়ে। আমাদের কাছে এই মাঠ অনেক পরিচিত। সমর্থনটা খুব গুরুত্বপূর্ণ থাকে মিরপুরে। দর্শকেরা অন্য রকম অনুভূতি তৈরি করে। আমার কাছে মনে হয় পরের ম্যাচের আগে এটাও অনেক ইতিবাচক একটা দিক।’

‘হোম অব ক্রিকেটে’ ফিরে জয়ের ধারায় ফিরে খুশি বাংলাদেশ স্পিন কোচ সুনীল যোশি। তিনিও সাকিবের কথারই পুনরাবৃত্তি করলেন, ‘কাল আমরা অসাধারণ খেলেছি। সিলেটের ম্যাচের চেয়ে মিরপুরে আমাদের যে মানসিকতা দেখা গেছে, তা ছিল অসাধারণ। জয়ের পর দল ভীষণ চনমনে। বাংলাদেশ দলের জন্য মিরপুর অনেক পয়া মাঠ। এখানে আমরা অনেক ম্যাচ জিতেছি। এখানকার দর্শকও দলকে প্রবলভাবে অনুপ্রেরণা জোগায়। আমি বলছি না, সিলেটের দর্শকেরা তা করেনি। তারাও ভালো সমর্থন দিয়েছে। কিন্তু বছরের পর বছর মিরপুরেই ঘরের মাঠের সুবিধা সবচেয়ে বেশি নিতে পেরেছে বাংলাদেশ। এ মাঠই আমাদের বেশি পয়া।’

বাংলাদেশের সৌভাগ্যের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিশ্চয়ই বসে থাকবে না। দলের প্রতিনিধি হয়ে আজ সংবাদ সম্মেলনে আসা কিমো পল বললেন, তাঁরা ১০০ শতাংশের বেশি দিতে চান সিরিজটা জিততে, ‘কঠিন একটা সিরিজ যাচ্ছে আমাদের। (টেস্টের পর) ওয়ানডে হারলাম। এখন টি-টোয়েন্টি সিরিজ চলছে। এখনো আমরা আত্মবিশ্বাসী। মাঠে নামব এবং পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করব, বিষয়টা এখন এটাই। আমাদের এখন ১১০ শতাংশ দিয়ে খেলতে হবে যদি কাল সিরিজটা জিততে চাই।’