খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা :
সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্বামীকে মিথ্যা মামলায় হয়রানী করে পুলিশ সেজে দফায় দফায় ৪৭ হাজার টাকা গ্রহন, ফেনসিডিল খাওয়ার টাকা দাবী ও অভিযুক্তের স্বামী পলাতক থাকার সুযোগে দিনে রাতে বাসায় গিয়ে কুপ্রস্তাব, উত্তাক্ত ও ব্যর্থ হয়ে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে একটি সংবাদ সম্মেলন হয়েছে।

শুক্রবার বেলা ১০টার দিকে কলারোয়া প্রেস ক্লাবে উপস্থিত হয়ে এই সংবাদ সম্মেলন করেন
উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের শংকরপুর গ্রামের আলমগীর সরদারের স্ত্রী লিপিকা খাতুন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে গৃহবধূ লিপিকা খাতুন বলেন- কলারোয়া পৌর সদরের ৫ নং ওয়ার্ড শ্রীপতিপুর গ্রামের মৃত নূর ইসলাম ধাবকের পুত্র মারুফ হোসেন আমার স্বামী আলমগীর হোসেনের পূর্ব পরিচিত বলে শুনেছি। সে এলাকার একজন পেশাদার দালাল ও চিটার বাটপার বলে পরিচিত। বিগত কিছুদিন পূর্বে একটি মোটরসাইকেল ছিনতাই চক্রের ৩ আসামী গ্রেফতারের ঘটনার সাথে আমার স্বামীও জড়িত এমন তথ্য দিয়ে সিআইডি পুলিশ পরিচয়ে আমার স্বামীকে খুজতে থাকলে আমার স্বামী সেই থেকে পলাতক থাকার সুযোগে আমার স্বামীকে আর হয়রানি করা হবে না মর্মে দফায় দফায় আমার নিকট থেকে ৪৭ হাজার টাকা গ্রহন করে মারুফ হোসেন। আমার স্বামী বাড়িতে না থাকার সুযোগে বাড়িতে এসে আমার সাথে রাত্রিযাপন করার কূপ্রস্তাব দেয় এবং বিভিন্নভাবে উত্তাক্ত করে। এর পরও ছেলেপেলেদের ফেনসিডিল খাওয়ার টাকা দিতে হবে বলে প্রায়ই ২ হাজার করে টাকা দাবী করে। টাকা দিতে দেরী হলে হুমকি ধামকি দিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিপিকা আরো বলেন- আমার স্বামী যদি প্রকৃত অপরাধী হয়ে থাকেন সে সাজা পাক আমি চাই কিন্তু মিথ্যা মামলায় আমার স্বামী পলাতক থাকার সুযোগে মারুফ হোসেন দফায় দফায় ৪৭ হাজার টাকা নেওয়া, আমাকে দিনে রাতে বার বার কুপ্রস্তাব দেওয়াসহ গালিগালাজ করায় আমি আপনাদের লিখনির মাধ্যমে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপার এবং কলারোয়া থানা পুলিশ সহ প্রশাসনের নিকট সুবিচার কামনা করছি।