লোফাজ শেখ, খুবি প্রতিনিধিঃ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) সকল ডিসিপ্লিনের স্নাতকোত্তর (মাস্টার্স) এবং পিএইচডি প্রোগ্রামে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের পিএইচডি গবেষণার জন্য অনুদান প্রদান করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুসের সাক্ষর করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, খুবির সকল ডিসিপ্লিনের স্নাতকোত্তর (মাস্টার্স) এবং পিএইচডি প্রোগ্রামে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের পিএইচডি গবেষণার জন্য চলতি ২০২১-২২ অর্থ বছর হতে স্নাতকোত্তর (মাস্টার্স) এমফিল এবং পিএইচডি গবেষণার অনুদান প্রদান করা হবে।

আগ্রহী প্রার্থীদেরকে ডিসিপ্লিন প্রধানের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট স্কুলের ডিন বরাবর আবেদন করতে বলা হয়েছে। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। গবেষণার অনুদান সংক্রান্ত আবেদন ফরম সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনে পাওয়া যাবে।

আরও জানা যায়, ডিসিপ্লিন বাছাই কমিটি দ্বারা নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা যোগ্যতার মানদন্ডের ভিত্তিতে থিসিস টার্মে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের মধ্যে কয়েকজন প্রতিমাসে ৫০০০ টাকা হারে গবেষণা অনুদান পাবেন। এছাড়া এমফিল/পিএইচডি গবেষণার জন্য প্রতি মাসে যথাক্রমে ৮,০০০ টাকা/ ১০,০০০ টাকা হারে গবেষণা-অনুদান পাবেন তারা।

এ গবেষণা অনুদান প্রতি ৬ মাস অন্তর প্রদান করা হবে ও অনুদানের সময়সীমা হবে ১২ মাস। গবেষণা প্রোগ্রামের মেয়াদ ১২ মাস পেরিয়ে গেলেও একজন শিক্ষার্থীকে সর্বোচ্চ এক বছরের জন্যই গবেষণা অনুদান প্রদান করা হবে বলে জানা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ ডিসিপ্লিনের স্নাতকোত্তর ব্যাচের শিক্ষার্থী রায়হানুল ইসলাম বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই৷ আর্থিক সহায়তা পেলে অনেক শিক্ষার্থীরাই গবেষণায় আগ্রহী হবে এবং এতে আমাদের গবেষণার পথ আরো সুগম হবে।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মো. শরীফ হাসান লিমন বলেন, ‘যেহেতু আমাদের এখানে আগে কখনও এ সুযোগটা ছিল না। বর্তমান প্রশাসন এ উদ্যোগ নিয়েছে যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার দিক থেকে আরও এগিয়ে যেতে পারে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস বলেন, ‘শিক্ষার্থীদেরকে উচ্চশিক্ষায় উৎসাহিত করার জন্য গত সিন্ডিকেটে গবেষণার অনুদান সংক্রান্ত এ নীতিমালা পাশ হয়েছে। উচ্চশিক্ষার জন্য যারা বাইরে যেতে পারে না আশা করি এ প্রণোদনার মাধ্যমে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ ও গবেষণায় আরও উৎসাহী হবে।’

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের করোনাকালীন হল ও পরিবহন ফি মওকুফ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।