মজনুর রহমান আকাশ, গাংনী (মেহেরপুর) প্রতিনিধিঃ উচ্চ ফলনশীল ও পুষ্টি সমৃদ্ধ নতুন এক তৈলজাত ফসলের নাম পেরিলা। এ থেকে লিনোলিনিক এসিড সমৃদ্ধ তেল আহরণ ছাড়াও প্রাপ্ত খৈল গবাদিপশুর জন্য পুষ্টিকর খাবার ও জৈব সার হিসেবেও ব্যবহার করা যায়। পেরিলা চাষ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মেহেরপুরের গাংনীতে পরীক্ষামূলক চাষ শুরু হয়েছে। কৃষি অফিস বলছে, সাউ পেরিলা – ১ বাণিজ্যিকভাবে চাষে যেমন তেলের আমদানির পরিমান কমে যাবে, তেমনি দেশের অর্থনীতিতেও আনতে পারে আমূল পরিবর্তন।

কৃষি বিভাগের তথ্যানুযায়ী, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষিতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. এইচ এম এম তারিক হোসেন ২০০৭ সালে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে সংগ্রহ করেন এই জাত। ২০২০ সালের জানুয়ারিতে জাতীয় বীজ বোর্ড সাউথ কোরিয়ান ভ্যারাইটির সাউ পেরিলা-১ নামে জাতটির নিবন্ধন দেয়। জাতটি দেশের আবহাওয়ার উপযোগী করে সাধারণভাবে সরিষা ভাঙানোর মতো করেই এই তেল পাওয়া যায়।

এ ফসলটির আবাদ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে গাংনী উপজেলা কৃষি অফিস স্থানীয় কৃষকদেরকে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন ও বীজ সরবরাহ করেন। প্রতি বিঘা জমিতে জমি প্রস্তুত থেকে ফসল মাড়াই পর্যন্ত খরচ হবে মাত্র ১০ হাজার টাকা। আর এ থেকে পাওয়া সম্ভব ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। তাছাড়া ৭৫ দিনে এ ফসল কাটা মাড়াই সম্ভব।

তেরাইলের চাষি নজরুল ইসলাম জানান, উপসহকারী কৃষি অফিসার বকুল হোসেন প্রথমে এ ফসলটি চাষে উদ্বুদ্ধ করেন। তিনিই বীজ সংগ্রহ করেন এবং চাষ পদ্ধতি জানান। এটি অত্যন্ত লাভজনক ফসল হিসেবে জানালে এটি চাষ করা হয় পরীক্ষামূলকভাবে। এ ফসল সাথী ফসল হিসেবেও আবাদ করা সম্ভব। সাউ পেরিলার গুণগত মান ও পতিত জমিতে চাষ করা সম্ভব। সেই সাথে দো ফসলি ও তিন ফসলি ছাড়াও সাথী ফসল হিসেবে এর চাষ সম্ভব। তাই অনেকেই আসছেন সাউ পেরিলার চাষের পরামর্শ নিতে।

গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার এমকে রেজা জানান, লিনোলিনিক এসিড সমৃদ্ধ তেল সাধারণ তেলের চেয়ে বেশি উপকারি এবং বাজার মূল্যও বেশি। দেহের জন্য উপকারী এ তেলে নেই কোনো ক্ষতিকারক ইউরিক এসিড।

গাংনী উপজেলা কৃষি অফিসার লাভলী খাতুন জানান, সাউ পেরিলা-১ চাষ সম্পর্কে চাষিদেরকে বিভিন্ন ভাবে পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। কোরিয়া থেকে আমদানি করা প্রতি লিটার ‘পেরিলা তেল’ বাংলাদেশের বাজারে ২০০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাড়তি পুষ্টিগুণের কারণে ধনী শ্রেণির মধ্যে এই তেলের বিশেষ চাহিদা রয়েছে। পেরিলা ফসলের চাষাবাদ সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে পারলে এরচেয়ে অনেক কম মূল্যে পেরিলা তেল বাজারজাত করা সম্ভব হবে।