তাজুল ইসলাম প্রধান, গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে গরু-বাছুরের ক্ষুরা রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এ রোগে প্রায় ৫-৭টি গরু-বাছুর মারা যাওয়ায় খামারী দিশাহারা হয়ে পড়েছে।

এলাকাবাসী ও প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, র্মাচের শুরুতেই গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কাটাবাড়ী ইউনিয়নের বেতারা গ্রামের ছফের আলীর দুগ্ধ খামারে উন্নত জাতের (ফ্রীজিয়ান) ৫টি গাভী -বাছুরের ক্ষুরা রোগ দেখা দেয়। এমনকি অনেক চিকিৎসার পরেও ১টি বাছুর মারা যায় বলে খামারি জানিয়েছেন।

সেই সাথে ছফের আলী আরো জানান, রোগে আক্রান্ত গাভী গুলির দুধ প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে।এতে করে তিনি হতাশা প্রকাশ করেন।কাটাবাড়ী সহ বিভিন্ন গ্রামে কমপক্ষে ৫-৭টি গরু মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, উপজেলার কাটাবাড়ী ও কোচাশহর সহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে গরু-বাছুরের ক্ষুরা রোগ ব্যাপক হারে আক্রান্ত হয়েছে। এলাকার খামারিরা প্রাথমিক ভাবে চিকিৎসা করলেও ক্ষুরা রোগের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পেতে থাকে।

১৪ মার্চ বিকালে মুঠো ফোনে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ বিপ্লব কুমার এর সাথে কথা বলে জানা যায়, তার কাছে ক্ষুরারোগের খবর শুধু মাত্র কোচাশহর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে প্রায় ১০-১২টি গরম্ন ড়্গুরা রোগে আক্রান্ত হয়েছে। তবে তিনি কাটাবাড়ীতে দুগ্ধ খামারে গরু আক্রান্ত এবং মারা যাওয়ার কোন খবর জানেন না। ক্ষুরা রোগের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক কোচাশহর আক্রান্ত গ্রামগুলি পরিদর্শন করেন এবং মেডিক্যাল টিম গঠন করে খামারিদের গরু-বাছুরের চিকিৎসাসহ ভ্যাকসিনেশন করা হচ্ছে।

প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার বিপ্লব কুমার জানান, অফিসে জনবল কম হলেও আমরা আক্রান্ত গরু-বাছুরের চিকিৎসা দেয়াসহ অন্যান্য গরু-বাছুরের ভ্যাকসিনেশন করা হচ্ছে।