মোহাম্মদ আবদুল ওয়াদুদ

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় নির্বাচনী সংঘর্ষে অংকুর দত্ত নামের একজন নিহত হয়েছেন। এছাড়াও বোয়ালখালীতে সাংবাদিকদের বহনকারী গাড়ী ভাংচুর করা হয়েছে। চন্দনাইশে কেন্দ্র দখল করে ব্যালেট পেপার ছিনতাই করেছেন প্রতিপক্ষরা। আনোয়ারায় নিহত সিংহরা দত্ত নেপাল দত্তের ছেলে। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় দিকে আনোয়ারায় চাতরী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে ওই ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সৈয়দ আনোয়ার খালেদ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সিংহরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র এলাকায় মেম্বার প্রার্থী রঘুনাথ শিকদার এবং নাজিম উদ্দীনের সমর্থকদের মধ্যে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে কয়েক দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় আপেল প্রতীকের মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় আহত হন অংকুর দত্ত। ঘটনার সময় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর স্বজনরা চমেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে পরৈকোড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ভোট বর্জন করেছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নাজিম উদ্দিন। সকাল ১০টায় উপজেলার সামনে এসে তিনি এই ঘোষণা দেন।

এতে তিনি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মামুনুর রশিদ চৌধুরী আশরাফের বিরুদ্ধে কয়েকটি কেন্দ্র দখলের অভিযোগ করেন। ওদিকে বোয়ালখালীতে সাংবাদিকদের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় ২ জনকে আটক করেছেন বিজিবি। উপজেলার আহলা করলডেঙ্গা ইউনিয়নের আসাদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ওই গাড়ী ভাংচুরের সময় তাদের আটক করা হয়। আসাদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে যাওয়া সাংবাদিকদের কয়েকটি গাড়ী ভাংচুর করেন সন্ত্রাসীরা।

এই কেন্দ্রে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এদিকে চন্দনাইশের হাশিমপুর ইউনিয়নে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের একটি কেন্দ্র দখল করতে চেয়ারম্যান পদের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোজাম্মেলের সমর্থকরা হামলা চালিয়েছে। এসময় এক পুলিশ সদস্যও আহত হন। ঘটনার সময় ১০০টি ব্যালট পেপার লুট হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলিও ছুঁড়েন। প্রসঙ্গত, দক্ষিণ চট্টগ্রামের ২৪টি ইউনিয়নে বুধবার ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে মাঠে ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ১৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।