বেল্লাল হোসেন নাঈম, স্টাফ রিপোর্টারঃ নোয়াখালীর চাটখিল রামগঞ্জ সড়কের ১১ নং পুলের গোড়ায় বেপরোয়া জননী বাস ৩ মোটরসাইকেল আরোহীকে চাপায় দেয়। এতে একজনের মৃত্যু ও দুইজন আহত হয়েছে।

সোমবার ১১অক্টোবর সন্ধ্যায় জননী পরিবহন এর একটি বাস নং চাঁদপুর জ-১১-০০৩ এর সঙ্গে মোটর সাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে মোটরসাইকেল আরোহী তিন কিশোর গুরুতর আহত হলে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

হাসপাতালে নেওয়ার পরই ফাইমুল হাসান অমিত(১৫) মারা যায়। অমিত চাটখিল পৌরসভার মির্জাপুর নোয়াবাড়ির নাসির মিয়ার ছেলে। আহত দুজন হচ্ছে একই গ্রামের হানিফ মিয়ার ছেলে মিলন (১৫) আমিরের ছেলে শাওন(১৪)

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান সন্ধ্যা সাতটার দিকে রামগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা জননী পরিবহনের বাসটি বেপরোয়া গতিতে চাটখিলের দিকে আসছিল এসময় চাটখিল থেকে মোটরসাইকেল আরোহী তিন কিশোর ১১নং পোলের গোড়ায় গেলে জননী বাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, অমিত একটি ডেকোরেটরের দোকানে শ্রমিক হিসেবে কাজ করতো, ঘটনার দিন তারা তিন বন্ধু একত্রিত হয়ে মির্জাপুরের আনোয়ারের কাছ থেকে ঘন্টা ১ শ টাকা হিসেবে মোটরসাইকেলটি ভাড়া নিয়ে ঘুরতে বের হয়।