এ বার আলুর খোসাই চুলকে কালো রাখবে। ছবি: শাটারস্টক।
নিজস্ব প্রতিবেদক : খাদ্যাভ্যাস, বংশগত কারণ ও লিভারের নানা সমস্যা থেকে চুল পেকে যেতে পারে অকালেই। চিকিৎসকদের মতে, অনিয়মিত ঘুম, অতিরিক্ত মানসিক চাপ, কর্মব্যস্ততা ও পেটের নানা সমস্যা থেকেও চুল পেকে যাওয়া অস্বাভাবিক নয়।

শরীরে ভিটামিন এ, জিঙ্ক ও কপারের অভাব চুলকে প্রভাবিত করে। মেলানিন কমে যাওয়ায় চুলের রং কালো থেকে ধূসর বা সাদা হওয়ার দিকে ঝোঁকে। অকালে চুল পেকে গেলে অনেকেই অবসাদে ভোগেন। কালো চুলরং হারিয়ে তার সৌন্দর্যও হারায়।

তখনই বাজারচলতি হেয়ারডাইয়ের রাসায়নিক ব্যবহার করে চুলে রং করেন অনকেই। কিন্তু এই সব রাসায়নিক চুল ও ত্বকের ক্ষতি করে। কারও কারও ক্ষেত্রে চুল ঝরে যাওয়া, মাথায় ঘা হওয়া, এমনকি রাসায়নিক মেশানো নানা হেয়ারডাই ব্যবহার করে অ্যালার্জিও হয় অনেকে।

তবে সহজ এই ঘরোয়া উপায় জানা থাকলে পাকা চুলের হাত থেকে মুক্তি তো ঘটবেই এবং চুলের কোনও ক্ষতিও হবে না। জানেন কী সেই উপায়?

আলু ছাড়িয়ে তার খোসাগুলো একটি পাত্রে রাখুন। এতে দু’-তিন কাপ জল যোগ করুন। এ বার এই জলে আলুর খোসাগুলিকে সেদ্ধ হতে দিন। আলুর খোসা সেদ্ধ হয়ে এলে জল ছেঁকে নিন। এ বার এই আলুর খোসা ছাঁকা জল ঠান্ডা হলে ভরে রাখুন একটি বোতলে। ময়শ্চারাইজিং শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার দিয়ে চুল ধুয়ে এই জল মাখিয়ে নিন চুলে। এর পর আর চুল ধোবেন না। বরং তোয়ালে দিয়ে চেপে রাখুন কিছু ক্ষণ। তার পর চুল শুকিয়ে গেলে আঁচড়ে নিন। আলুর খোসার গন্ধে অস্বস্তি হলে এই জলে এসেনশিয়াল ওয়েল মিশিয়ে রাখুন। তাতে এই গন্ধ আর সমস্যায় ফেলবে না।

হেয়ারডাইয়ের মতো চটজলদি ও নিমেষে চুল কালো এতে হবে না ঠিকই, কিন্তু নিয়মিত ব্যবহারকরলে চুল পাকার প্রবণতাও কমবে এবং সাদা হয়ে যাওয়া চুলে কালচে প্রলেপও পড়বে।