আব্দুস সেলিম, চুয়াডাঙ্গাঃ
চুয়াডাঙ্গা পৌর নতুন বাজার এলাকার  ইচ্ছাহাক আলীর মেয়ে  শ্রাবণী আক্তার লাবনী(১৯) নামে এক নববধু বিয়ের ৭ মাথায় আত্মহত্যা করেছে। বুধবার (১২ জানুয়ারী) সকাল ৯ টার দিকে শ্রাবণীকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।
নিহত শ্রাবণীর ছোট চাচা মুক্ত আহম্মেদ বলেন, গত এক স্বপ্তা পূর্বে পারিবারিকভাবে কুষ্টিয়া জেলার হালসা গ্রামে আলিমুজ্জামানের ছেলে সোহানুজ্জামান সোহানের সাথে  শ্রাবণী আক্তার লাবনীর বিবাহ হয়। এখন জানতে পারছি শ্রাবণীর সাথে কোন এক ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। এ কারণে বিয়ের একদিনের মাথায় সে বাপের বাড়িতে চলে আসে। এ নিয়ে বাবা-মায়ের সাথে গন্ডগোল হতে থাকে।
বুধবার সকালে বাপের বাড়িতে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাই পরিবারের সদস্যরা। পরে শ্রাবণীকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সোহানা আহম্মেদ  বলেন, পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর শ্রাবণীকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছে। হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন  বলেন, বিয়ের আগে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এই কারণে একদিন সংসার করে বাপের বাড়িতে এসে আত্মহত্যা করেছে শ্রাবণী। কোনো অভিযোগ না থাকায় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে মরদেহ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হবে। এঘটনায় সদর থাকায় একটি অপমৃত্যু মামলা প্রক্রিয়াধীন।