নিজস্ব প্রতিবেদকঃ চুয়াডাঙ্গা জেলায় করোনা ভ্যাকসিন বা করোনার টিকাদান শুরু হয়েছে। চুয়াডাঙ্গার পুলিশ হাসপাতাল কেন্দ্রে প্রথম টিকা নিয়েছেন পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম।

চুয়াডাঙ্গা এসপি জাহিদুল করোনা টিকা নিচ্ছেন

কোভিড-১৯ প্রতিরোধের জন্য সারাদেশে রবিবার (০৭ ই ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে ১০০৫ টি কেন্দ্রে একযোগে টিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় চুয়াডাঙ্গা জেলায় করোনা টিকা প্রদান কর্মসূচিতে সকাল ১০ টায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চুয়াডাঙ্গা-১ এর সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার, চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গার সিভিল সার্জন ডা. এস এম মারুফ হাসান সহ সদর হাসপাতালের অন্যান্য ডাক্তার ও কর্মচারীবৃন্দদের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে করোনার টিকার প্রয়োগ শুরু হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলার ৬ টি কেন্দ্র (সদর হাসপাতাল, চুয়াডাঙ্গা, পুলিশ হাসপাতাল, বিজিবি হাসপাতাল, ডিঙ্গেদাহ, হারদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, চিৎলা দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, জীবননগর থেকে করোনার ভ্যাকসিন (টিকা) প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলার পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, সিভিল সার্জন এস এম মারুফ হাসান, ডাক্তার আওলিয়ার রহমান পুলিশ হাসপাতাল, পুলিশ লাইন্স, চুয়াডাঙ্গায় করোনা ভ্যাকসিন (টিকা প্রদান কর্মসূচি উদ্বোধন করা হয়েছে।

উদ্বোধনকালে চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার নিজে করোনা ভ্যাকসিন (টিকা) গ্রহনের মাধ্যমে পুলিশ সদস্যদের মাঝে টিকা প্রদান কর্মসূচির শুভ সূচনা করেছেন। করোনার টিকা গ্রহণের পর পুলিশ সুপার আধ ঘন্টা পর্যবেক্ষণে ছিলেন। এতে পর্যায়ক্রমে জেলার বাকি পুলিশ সদস্যদের মাঝেও করোনা ভ্যাকসিন (টিকা) প্রদান কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

টিকা গ্রহণ শেষে পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম জানান,”রবিবার হতে করোনা ভ্যাকসিন প্রদানের মাধ্যমে দেশে একটি মহৎ কাজের শুরু হলো।”

উল্লেখ্য যে, এসময় চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার সকল পুলিশ সদস্যদের টিকা গ্রহণের নির্দেশনা প্রদান করেছেন। আনুষ্ঠানিকভাবে চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার জেলা পুলিশের পক্ষে প্রথম টিকা গ্রহণ করায় চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের সকল সদস্যের মনোবল বৃদ্ধি পেয়েছে।