কামরুল ইসলাম: পুলিশ মানেই ভয়! পুলিশ মানেই আতঙ্ক! পুলিশ মানেই বিপদ! না! সাধারণ মানুষের এসব ধারণার মূলোৎপাটন করে দিয়েছেন চট্রগ্রাম জেলার অন্তর্গত লোহাগাড়া থানার ট্রাফিক বিভাগের টি আই স্নেহাংশু বিকাশ সরকার । ন্যায়ের পক্ষে অবস্থান ও অন্যায়ের সাথে আপোষহীন খাগড়াছড়ি জেলার কৃতি সন্তান লোহাগাড়া থানার ট্রাফিক বিভাগের টিআই স্নেহাংশু বিকাশ সরকার লোহাগাড়া উপজেলার মানুষের মনের ভয়কে দূর করে স্থান করে নিয়েছেন হৃদয়ে। প্রশংসায় ভাসছেন উপজেলা সদর সহ ৯টি ইউনিয়নের আনাচে কানাচে চড়িয়ে থাকা সকল অসহায় গাড়ী চালক ও হকারদের মাঝে । সরল প্রকৃতির এই মানুষটি যেন জনদরদী হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছেন সবার কাছে। বিভিন্ন সমস্যা ও বিপদগ্রস্থ গাড়ী চালক ও হকারদের আইনী সুপরামর্শ সহ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে আসছেন তিনি।এদিকে তাঁর নিরলস প্রচেষ্টা ও সঠিক নেতৃত্বের ফলে লোহাগাড়া থানার ট্রাফিকের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও বেশ উন্নত হয়েছে । সকল যানবাহন চালকরা মুক্তি পাচ্ছে অপ্রয়োজনীয় ও হয়রানিমূলক মামলার জটিলতা থেকে । লোহাগাড়া সদরে দীর্ঘদিন ধরে টুকিটাকি চলতে থাকা চান্দাবাজী ও দালালদের দৌরাত্ম্যও একদম নেই বললেই চলে । লোহাগাড়া সদরে অবস্থিত ট্রাফিক অফিস থেকে সরাসরি সাক্ষাতের মাধ্যমে সারাক্ষণ সেবা দেয়ার পাশাপাশি ফেইসবুকেও জনকল্যাণমুখী সুপরামর্শ সহ বিভিন্ন সচেতনতামূলক পোষ্ট দিয়েই যাচ্ছেন অবিরত। থানার একজন টিআইর মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি জায়গা থেকে করা সচেতনতামূলক এসব ফেইসবুক পোষ্টও যেন জনমনে বেশ ভালোই প্রভাব ফেলছে। জনগণ পাচ্ছে আস্থা, সাহস পাচ্ছে বিপদে-আপদে ট্রাফিক পুলিশের উপর ভরসা রাখার । বর্তমানে লোহাগাড়া উপজেলার প্রায় প্রত্যেক এলাকায় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষসহ গাড়ী চালক ও হকারদের মুখে শোনা যাচ্ছে “টি আই স্নেহাংশু বিকাশ সরকারের ” নামটি”। উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসকারী দুর্বল ও অসহায় লোকজন সদরে এসে নির্বয়ে নিতে পারছে তাদের প্রাপ্য সেবা ।ট্রাফিক পুলিশ সম্পর্কে মনের ভেতরে থাকা ভয়কে জয় করে পুলিশের উপর আস্থা পাচ্ছে সাধারণ মানুষ সহ গাড়ি চালক,হকরেরা । বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণিপেশার ব্যবসায়ী ও গাড়ি চালক জানান, “টি আই স্যার থাকা কালে লোহাগাড়া ট্রাফিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি খুব ভালো আছে। এমনকি আমরা বিপদে পড়লে যেভাবে ট্রাফিক বক্সে যেকোনো বিষয়ে নির্ভয়ে কথা বলতে পারছি ও বিভিন্ন আইনী বিষয় সুপরামর্শ পাচ্ছি। এটা এর আগে কখনো পাইনি । আমরা চাই এই টি আই স্যার যেন আমাদের লোহাগাড়া থানায় আরো বেশ কিছুদিন থাকেন । বর্তমানে লোহাগাড়া থানায় দায়ীত্বরত টি আই স্নেহাংশু বিকাশ সরকারের মতো দেশের অন্যান্য থানার ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তাগণ জননিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রচেষ্টা ও সেবা দান করলে দেশের মানুষের মনের ভিতরে থাকা ট্রাফিক পুলিশ সম্পর্কে কু-ধারণার অবসান ঘটবে বলেও মন্তব্য করেন তাঁরা।