এস কে মুকুল, জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার হিন্দা উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষ ভেঙ্গে দোকান ঘর নির্মানের অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির বিরুদ্ধে। প্রতিবাদে মানববন্ধন বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী । বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবি পরিত্যাক্ত ভবন ভেঙে দোকান নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বিদ্যায়ের স্বার্থেই।

সরেজমিনে দেখা গেছে,উপজেলার হিন্দা শিমুলতলী বাজার সংলগ্ন রাস্তার উত্তর পাশে হিন্দা উচ্চ বিদ্যালয় অবস্থিত। সেখানে গত মঙ্গলবার রাস্তা সংলগ্ন দোকান ঘর নির্মানের জন্য বিদ্যালয়ের চারটি ক্লাসরুম ভেঙ্গে ফেলছেন স্কুল কর্তৃপক্ষের লোকজন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কোভিট-১৯ এর কারনে বিদ্যালয় দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির ব্যক্তি স্বার্থে শ্রেণী ভেঙ্গে দোকান ঘর নির্মান করছেন। কাওকে না জানিয়ে গোপনে নিজের পছন্দের সাত জন ব্যক্তির নিকট লিজ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিদ্যালয়ের চাঁদা আদায় রশিদে ১৭ লক্ষ টাকা (প্রায়) জামানত নিয়েছে তারা।

তারা আরও জানিয়েছে, উক্ত বিদ্যালয়ে শ্রেণী কক্ষের অভাবে একই কক্ষে একসাথে দুটি ক্লাস নেওয়া হয়। একরুমে পাটিশান দিয়ে কমনরুম করা হয়েছে সেখানে গাদাগাদী করে থেকে ক্লাস করতে হয় ছাত্রীদের। এতে পাঠদান প্রক্রীয়া চরম ভাবে ব্যহত।বিদ্যালয়ের ক্লাসরুম ভেঙ্গে অপরিকল্পত ভাবে দোকান ঘর নির্মান করলে শিক্ষার্থী ও এলাকার শিশু কিশোরদের নষ্ট হবে খেলার মাঠ।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আসরাফ ফকিরের নেত্রীত্বে বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষ ভেঙ্গে দোকান ঘর নির্মানের প্রতিবাদে মঙ্গলবার ৩টায় বিদ্যালয় সংলগ্ন রাস্তায় অভিভাবক ও এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে।
এসময় বক্তব্য দেন হিন্দা ফকিরপাড়া গ্রামের রেজাউল ইসলাম, আঃ জোব্বার, গাংগাইর গ্রামের নজরুল ইসলাম নজু প্রমুখ।
হিন্দা উচ্চ বিদ্যালযের প্রধান শিক্ষক লজাবত আলী ও স্কুল পরচালনা কমিটির সভাপতি-আঃ গফুর মন্ডল। তারা বলেন, স্কুলের উন্নয়নের স্বার্থে সকল নিয়ম মেনে পরিত্যাক্ত ক্লাসরুম ভেঙ্গে দোকান ঘর নির্মান করা হচ্ছে।

ক্ষেতলাল উপজেলা নির্বাহি অফিসার এএফএম আবু সুফিয়ান বলেন, লিখিত অভিযোগ প্রাপ্তির পর বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষ ভেঙ্গে দোকান ঘর নির্মাণ বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।