ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহ পৌর এলাকার খাজুরা মাঠপাড়ায় সপ্তম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে (১৪) গনধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি মামলা হয়েছে। ওই ছাত্রী ঝিনাইদহ শহরের মুক্তিযোদ্ধা মসিউর রহমান বালিকা বিদ্যালয়ে ছাত্রী।

স্কুলছাত্রীর চাচা তরকারী বিক্রেতা মধু সংবাদকর্মীদের জানান, ঈদের দিন (সোমবার) সন্ধ্যার দিকে খাজুরা গ্রামের মুনতাজ আলীর ছেলে বাদশা, মন্টু মন্ডলের ছেলে রুহুল আমীন ও একই গ্রামের জাফরের ছেলে মুন্নু তার ভাতিজিকে মাঠ থেকে তুলে নিয়ে গনধর্ষন করে।

ধর্ষনের পর ক্যাডেট কলেজের সামনের একটি আবাসন এলাকায় ফেলে যায়।
পরে ভুমিহীন পাড়ার এক ব্যাক্তি স্কুলছাত্রীকে নিজ বাড়ি পৌছে দেয়। বাড়ি ফিরে পরিবারের নিকট সব খুলে বলে।

আব্দুল আজিজ জানান, তিনি ওই মেয়েটিকে পালিত কন্যা হিসেবে লালন পালন করছে।
তার কোন সন্তান নেই। ঈদের দিন সন্ধ্যার দিকে মেয়েটি পাশের বাড়িতে তার মাকে
খুজতে বের হয়। এ সময় বাদশা, রুহুল আমীন ও মুন্নু তাকে মুখ বেঁধে তুলে নিয়ে
ধর্ষন করে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা
হয়েছে। খবরের সত্যতা স্বীকার করে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান খান
বলেন, এ ব্যাপারে ধর্ষিতার পিতা আজিজুর রহমান বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন,
যার নং ২৮। আসামী গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।