সাইফুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ টাঙ্গাইলের পাহাড়িয়াঞ্চল মধুপুর, ঘাটাইল ও সখীপুর এলাকার আদিবাসী গারো সম্প্রদায়ের মাতৃভাষা ‘আচিক’ কালের গর্ভে বিলুপ্ত প্রায়। আচিকের লেখ্য রূপ ইতোমধ্যে বিলুপ্ত ও গারোদের মুখে মুখে এ ভাষা অল্প বিস্তর টিকে আছে। মাতৃভাষা আচিক রক্ষার জন্য সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগের দাবি জানিয়েছে আদিবাসী নেতারা। একই সাথে এ ভাষা রক্ষায় গারো শিশুদের মাতৃভাষায়(আচিক) প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা গ্রহনেরও দাবি জানিয়েছেন তারা।

মধুপুরের আদিবাসী গারোদের সাথে কথা বলে জানা যায়, একদা এতদাঞ্চলের গারো সম্প্রদায়ের মানুষ মাতৃভাষা ‘আচিক’ ভাষা ছাড়া অন্য কোন ভাষা জানতেন না বা ব্যবহার করতেন না। সময়ের বিবর্তণে জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে বা লেখাপড়া করতে প্রকৃতির সন্তান গারোরা আশপাশের বাঙালি প্রধান এলাকায় এসেছেন বা বাঙালিরা পাহাড়ে ব্যবসার জন্য তাদের কাছাকাছি গেছেন। আদিবাসী এলাকার বনভূমিতে বাঙালিরা বসতি স্থাপন করেছে। এভাবে এক সময় নিজ এলাকায়ই আদিবাসী গারোরা সংখ্যালঘু হয়ে পড়েছে। এখন গারো শিক্ষার্থীদের স্কুলে বাংলা মাধ্যমেই লেখাপড়া করতে হয়। কর্মজীবনে অফিস-আদালতসহ সব কাজেই তাদের বাংলা ব্যবহার করতে হয়। ফলে তাদের মাতৃভাষার চর্চা কমে যায়।

জানা যায়, বাংলাদেশের টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, সিলেট, শেরপুর, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, ঢাকা ও গাজীপুর জেলায় গারো সম্প্রদায়ের বসবাস। এছাড়া ভারতের মেঘালয়, আসামের কামরূপ, গোয়ালপাড়া ও কারবি আংলং জেলায় গারোরা বসবাস করে থাকে।

আদিবসী গারোরা ভাষা অনুযায়ী বোডো মঙ্গোলীয় ভাষাগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত। জাতিগত পরিচয়ের ক্ষেত্রে অধিকাংশ গারোই তাদেরকে মান্দি বলে পরিচয় দেন। গারোদের ভাষায় ‘মান্দি’ শব্দের অর্থ ‘মানুষ’। গারো ভাষা লাতিন লিপিতে লেখা হয়। গারোদের মাতৃভাষায় ‘আচিক’ শব্দের অর্থ ‘পাহাড়’।

আদিবাসী গারোদের বাসবাস সাধারণত পহাড়িয়াঞ্চলে। গোত্রভেদে গারোদের মধ্যে পৃথক পৃথক উপভাষার প্রচলন রযয়েছে। ‘আচিক’ উপভাষাটি বাংলাদেশের টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, শেরপুর, নেত্রকোণা এবং ভারতের মেঘালয় অঙ্গরাজ্যে বসবাসরত গারোদের ‘মাতৃভাষা’।
অন্যান্য উপভাষার মধ্যে রয়েছে- আবেং, আওয়ে, চিসাক, দাক্কা, গাঞ্চিং, কামরূপ, মাতচি।

এ ব-দ্বীপে আদিবাসী গারোদের মধ্যে ‘আবেং’ উপভাষাটিও প্রচলিত। এই উপভাষার সাথে কোচ ভাষার মিল রয়েছে। বাংলাদেশের গারোরা আবেং উপভাষায় কথা বললেও আচিক উপভাষায় লিখে থাকে।

আদিবাসী প্রবীণ নেতারা জানান, গারোদের সমাজে মাতৃতান্ত্রিক পরিবার প্রথা প্রচলিত। অতীতে গারোরা সবাই তাদের নিজস্ব ধর্ম পালন করত। তাদের আদি ধর্মের নাম ‘’সাংসারেক’। ১৮৬২ সালে এতদাঞ্চলের গারোরা খ্রিষ্টীয় ধর্ম গ্রহন করা শুরু করে। ধর্ম প্রচারে বন এলাকায় মিশনারীদের আগমনে বর্তমানে শতকরা ৯৮ ভাগ গারোরাই খ্রিষ্টীয় ধর্মাবলম্বী। খ্রিষ্টীয় ধর্মে দীক্ষিত হওয়ার পর তাদের সামাজিক নিয়ম-কানুন ও আচার-অনুষ্ঠানে অনেক পরিবর্তন এসেছে এবং খ্রিষ্টীয় ধর্মের আচারাদির প্রভাব পড়েছে।

মধুপুরের আদিবাসী নেতাদের মতে, বাংলাদেশে প্রায় সোয়া লাখ গারো সম্প্রদায়ের মানুষ রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৩০ হাজার মধুপুর গড়াঞ্চলে বসবাস করে। দুই বা তিন দশক আগেও গারোরা মাতৃ ভাষা ছাড়া অন্য কোন ভাষা জানত না। এখন মধুপুর গড়াঞ্চলের স্কুল পড়–য়া শিশুদের অধিকাংশই তাদের মাতৃভাষা ‘আচিক’ ভালভাবে জানেনা। কেউ কেউ নিজ বাড়িতে মা-বাবার মুখে শুনে এ ভাষা সম্পর্কে কিছুটা বুঝতে শিখলেও তারা আচিক ভাষায় অনর্গল উত্তর দিতে পারে না। বাংলা ও ইংরেজি ভাষার আধিক্যে তাদের মধ্যে ‘আচিক’ ভাষার চর্চাও কমে গেছে।

মধুপুরের আদিবাসী নেতা অজয় এ মৃ জানান, ‘আচিক’ ভাষার লিখিত কোন বর্ণমালা নেই। কথিত আছে- দুর্ভিক্ষপীড়িত তিব্বত অঞ্চল ত্যাগ করে গারোরা যখন ভারতীয় উপমহাদেশে আসছিলেন, তখন যার কাছে পশুর চামড়ায় লিখিত আচিক ভাষার পুঁথি-পুস্তকাদি ছিল, সেই ব্যক্তি পথে ক্ষুধার জ্বালা সহ্য করতে না পেরে সব পুঁথি-পুস্তক সেদ্ধ করে খেয়ে ফেলেন।

তিনি সম্পূর্ণ ব্যাপারটি গোপন রাখেন। এ উপমহাদেশে প্রবেশের পর নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষা এবং স্থায়ী বাসযোগ্য স্থান নির্বাচনের জন্য দীর্ঘদিন প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যে যুদ্ধবিগ্রহ করে অভিজ্ঞ গারোরা প্রাণ হারান। এ উপমহাদেশে আগমন ও বসতি স্থাপনের দীর্ঘদিন পরে পুঁথি-পুস্তক হারানোর ঘটনাটি প্রকাশ পায়। কিন্তু ততদিনে গারো বর্ণমালা বিস্মৃতির অতল গর্ভে বিলুপ্ত হয়ে যায়। ফলে আচিক ভাষার বর্ণমালা চিরতরে হারিয়ে যায়। তবে গারোদের মুখে মুখে আচিক ভাষার প্রচলন এখনও কোন কোন গারো পরিবারে রয়েছে।

মধুপুরের আচিক মিচিক সোসাইটির সভাপতি সুলেখা দ্রুং জানান, বাংলাদেশের গারো সম্প্রদায় তাদের মাতৃভাষা আচিককে টিকিয়ে রাখতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে রোমান বর্ণমালার আদলে নির্মিত আচিক ভাষার বর্ণমালার প্রচলনের চেষ্টা চলছে। ভারতে ইতোমধ্যে রোমান বর্ণমালার আদলে গারো সম্প্রদায়ের আচিক ভাষা সংরক্ষণের কাজ শুরু হয়েছে। মধুপুরেও শিশুদের রোমান অক্ষর দিয়ে আচিক ভাষার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে গারো অধ্যুষিত কয়েকটি স্কুলে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে এ ব্যবস্থা নেই। তিনি পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত সব স্কুলে আদিবাসীদের নিজস্ব ভাষায় পড়ানোর দাবি জানান।

আদিবাসীদের সংগঠন ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের মধুপুর শাখার কর্মকর্তারা জানান, মাতৃভাষা ধরে রাখার জন্য তারা নিজেরা বাড়িতে সব সময় আচিক ভাষায় কথা বলে থাকেন। তবু তাদের ভাষা রক্ষা করা যাচ্ছে না। বাংলার সঙ্গে ক্রমেই আচিক ভাষা মিশে যাচ্ছে।

জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক জানান, তাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে ২০০৮ সালে গড়াঞ্চলে ১২টি স্কুল চালু করা হয়েছিল- যেখানে গারো শিশুদের আচিক ভাষায় শিক্ষা দেওয়া হত। কয়েক বছর চলার পর দাতা সংস্থার অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে যায়। তিনি আদিবাসী শিশুদের মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষার ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

তিনি আরও জানান, ২০১০ সালে জাতীয় শিক্ষা নীতিমালায় শিশুদের তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত মাতৃভাষায় শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর কথা বলা হয়েছে। কিন্তু তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছেনা। গারো শিশুদের জন্য মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। না হলে আগামি প্রজন্ম মাতৃভাষা কী ছিল তাই জানতে পারবে না।