ঢাকা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পেরিয়েছে সড়কের যানজট। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে উত্তরের ঘরমুখো যাত্রীদের।

বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) সন্ধ্যা থেকেই সড়কে যানজট শুরু হওয়া যানজট রাত পার করে শুক্রবার (৮ জুলাই) সকাল পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে।

সরজমিনে দেখা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ১টায় কল্যাণপুর থেকে বাসে উঠে ৯ ঘণ্টা ধরে সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু সেতু পার হতে পেরেছে। যদিও বাসের শিডিউল বিপর্যয়ে ১১টার বাস ছাড়ে দুই ঘণ্টা পরে। এই পুরো পথে থেমে থেমে চলেছে বাস। যেখানে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে লেগেছে দ্বিগুণ সময়।

রাতের যানজট সকাল ১০টা নাগাদও শেষ হয়নি।

সাংবাদিক মাহবুব আলম লাবলু নামে এক যাত্রী সকাল ৮টায় জানিয়েছেন, শ্যামলী থেকে গাবতলী পার হতে তার সময় লেগেছে সাড়ে তিন ঘণ্টা।

তারও আগে সাংবাদিক এসকে আরিফ জানান, রাত ১১টায় ঢাকা থেকে ছেড়ে সকাল ৬টায় বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়েছেন।

বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত যাত্রীদের যাত্রাপথের পুরোটাই ছিল অসহনীয় কষ্ট আর ভোগান্তির। সড়কে দেখা গেছে বাস, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসের পাশাপাশি মোটরসাইকেল, গরুবাহী ফিরতি ট্রাক, পিকআপ ভ্যানে করে মানুষ ফিরছেন। কোথাও কোথাও যানবাহন বিকল হওয়ায় সড়কে বাধা তৈরি হয়।

সকাল ৯টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতুর ওপর ঢাকা যাওয়ার পথে যানবাহন থেমে থাকতে দেখা যায়। টাঙ্গাইল অংশে কয়েকটি ট্রেনও থেমে থাকতে দেখা গেছে, ট্রেনগুলোর ছাদেও ছিল যাত্রী বোঝাই।

এদিকে সকালের রোদে খোলা ট্রাকের নারী-পুরুষের মধ্যে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এছাড়া সড়কের পাশে বেশ কয়েকজনকে অসুস্থ হয়ে পড়তে দেখা যায়।

তবে সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাড়ে সড়কে গতি অনেকটা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। সড়কের চাপের তুলনায় প্রশাসনের তেমন তৎপরতা চোখে পড়েনি। তবে সকালে কিছু জায়গায় পুলিশকে সক্রিয় হতে দেখা গেছে।

প্রশাসন তৎপর হলে ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন হতো বলে মনে করছেন যাত্রীরা।