রাসেল আহমেদ, দামুড়হুদা প্রতিনিধি

চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দামুড়হুদা সদর ইউনিয়নে পাটাচোরা ও কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের সুবলপুর গ্রামের মাথাভাঙ্গা ও ভৈরব নদীর ত্রিমোহনির উপর তৈরি বাঁশের সাঁকোটি ভেঙ্গে গেছে।

নদী পার হতে আশপাশের প্রায় ৫/৬ গ্রামের মানুষের একমাত্র ভরসা ছিলো সাঁকোটি। সাঁকোটি ভেঙ্গে পড়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন এই এলাকার ৫/৬ গ্রামের বাসিন্দারা ও পাটাচোরা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং সাধারণ জনগণ।

স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, গত ২ জানুয়ারী ভেঙ্গে পড়েছে পাটাচোরা – সুবলপুর ভৈরব নদীর উপর প্রায় ৮০ ফুট দীর্ঘ এই সাঁকোটি। সরকারিভাবে কোনো উদ্যোগ না নেয়ায় ৫/৬ গ্রামের মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে নির্মাণ করেছিলেন সাঁকোটি।

এলাকাবাসী জরুরি ভিত্তিতে সাঁকোটি পুননির্মাণের দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে। স্থানীয়রা দৈনিক এই আমার দেশকে বলেন, ওই স্থানে একটি পাকা সেতুর জন্য দীর্ঘদিন ধরেই দাবি জানিয়ে আসছি আমরা। কিন্তু কারো কোন সাড়া নাই। এক পর্যায়ে চাঁদা দিয়ে এলাকাবাসীদের নিজ উদ্যোগে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে সাঁকোটি তৈরি করি।

উপজেলার পাটাচোরা,সুবলপুর রঘুনাথপুর,বাস্তপুর, আমডাঙ্গা, কাঞ্চনতলা,কাদিপুর, গোবিন্দপুর সহ ৩ টি ইউনিয়নের পাটাচোরা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছে।ষ্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের একমাত্র পথ এ বাঁশের সাঁকো। কিন্তু সাঁকোটি ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে। এরপর থেকে প্রায় চার কিলোমিটার পথ ঘুরে শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষেরচলাচল করতে হচ্ছে ।

এলাকা বাসী আরো বলেন, এখানে একটি ব্রিজ আমাদের দীর্ঘদিনের দাবি। আমাদের এই আবেদন বিভিন্ন স্থানে জানালেও কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। তাই নিজেরা চাঁদা তুলে বাঁশের সাকোঁ বানিয়ে চলাচল করছিলাম। সেটাও এখন ভেঙে গেছে।

এলাকাবাসী, যাতায়াতের ও স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে সেতুটি পুণনির্মানের জন্য কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।