কামরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলার চন্দনাইশ সীমান্ত থেকে শুরু করে লোহাগড়ার শেষ সীমান্ত পর্যন্ত দোহাজারী হাইওয়ে পুলিশের এলাকা এই এলাকার মানুষের নিরাপদ চলাচলের স্বার্থে রাতদিন কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন দোহাজারী হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রব সহ তার অধীনস্থ অফিসার সহ কনস্টেবলরা তাদের প্রতিদিন চলছে দুঃসাহসিক অভিযান । অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রব সম্পর্কে জানতে গিয়ে বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তা ও বিশেষ জনদের মুখে শোনা যায় চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলার দোহাজারী হাইওয়ে থানা পুলিশ দীর্ঘদিন যাবৎ মহাসড়কের নিরাপত্তা ও যানজট নিরসনে কাজ করে চলেছেন। বর্তমান সময়ে ট্রাফিক শৃঙ্খলা বজায় রাখতে দোহাজারী হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রব নিষ্ঠা ও সৎ ভাবে তার উপরে অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করছেন বিধায় দোহাজারী হাইওয়ে থানার ট্রাফিক শৃংখলার আজকে এত উন্নয়ন। অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রব সম্পর্কে আরও জানা যায় তিনি দীর্ঘদিন ধরে পরিবারের মায়া মমতা ত্যাগ করে দোহাজারী হাইওয়ে থানায় রাতদিন জনগণকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন দোহাজারী হাইওয়ে সড়কে শান্তি ও নিরাপদ সড়ক হিসেবে গড়ে তুলে দোহাজারী হাইওয়ে থানার সম্মান সরকার ও জনগণের কাছে বৃদ্ধি করেছেন।তিনি সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০২০ সালের শেষের দিকে দোহাজারী হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে দোহাজারী হাইওয়ে থানায় যোগদান করেন তিনি তখন থেকে এই পর্যন্ত বিভিন্ন গাড়ির থেকে জরিমানা আদায় করে সরকারি কোষাগারে বেশকিছু জরিমানার টাকা জমা করতে সমর্থ হয়েছেন এই ছাড়া ও বিভিন্ন মামলার আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে ৩ চাকা বিশিষ্ট অটোরিকশা, ভ্যান,নসিমন, করিমন,সিএনজি, মোটরসাইকেল, বাস-ট্রাক সহ বিভিন্ন যানবাহন জব্দ করা হয়েছে। এই বিষয়ে তিনি বলেন আমার চেয়ে এই বিষয়ের পিছনে যাদের অবদান বেশি তারা হচ্ছেন আমার দোহাজারী হাইওয়ে থানার দায়িত্বরত সকল অফিসার ও কনস্টেবল তাদের সহযোগিতার কারণেই আল্লাহর রহমতে স্বনামের সহিত দোহাজারী হাইওয়ে থানায় দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি । তিনি আরও বিভিন্ন বিষয়ে বলতে গিয়ে বলেন প্রতিটা মানুষের কিছু স্বপ্ন আছে কিন্তু স্বপ্নের পথে পা বাড়ালেই একের পর এক আসতে থাকে প্রতিবন্ধকতা। যেই ব্যক্তি এসব প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে এগিয়ে যাবেন তিনিই হবেন সফল ও সার্থক আমারও চাকরি জীবনে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছিল আমি সেই সব প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে আজ এখানে এসে দাঁড়িয়েছি আমি মনে করি আমার আদর্শের কারণেই আমি আজ একজন আদর্শ পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে পরিচিত অর্জন করেছি । প্রিয় দেশবাসী আসলামুআলাইকুম আজ আমরা আপনাদের সামনে এমনই একজন সমাজ সেবক ও পুলিশ কর্মকর্তা কে নিয়ে কথা বলছি যিনি একনাগাড়ে একজন সমাজসেবক একজন দুঃসাহসিক সৎ, কর্মট পুলিশ কর্মকর্তা । যিনি অনেক বাধা ও প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে একজন সফল ব্যক্তি সফল পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত ও পরিচিত হয়েছেন চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলার দোহাজারী হাইওয়ে থানার পুলিশ সহ সাধারণ মানুষের কাছে যিনি আদর্শ পুলিশ অফিসার হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন ।
সর্বোপরি বাংলাদেশ সরকারের সফল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের যে স্বপ্ন রয়েছে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য তাঁর পরিশ্রম, সাহস, ইচ্ছাশক্তি, একাগ্রতা আর প্রতিভার মধ্যমে দোহাজারী হাইওয়ে থানার আইন শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে অত্র এলাকার জনগণের ভালোবাসা আদায় করতে সমর্থ হয়েছেন ও বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ও বাংলাদেশ পুলিশের সমন্বয়ে দোহাজারী হাইওয়ে থানার আইন শৃঙ্খলা উন্নয়নে সঠিক কর্মকান্ড ও সুচারুভাবে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। এলাকার জনসাধারণ সহ তার অধীনস্থ পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন আব্দুর রব স্যার সঠিক দায়িত্ব পালন করেছেন ।

কাজেই তিনি দোহাজারী হাইওয়ে থানার সকল পুলিশ কর্মকর্তা ও এলাকার সকলের সহযোগিতা পাচ্ছেন এবং সহযোগিতার আশাও ব্যক্ত করে চলেছেন।

চন্দনাইশ থেকে লোহাগাড়া পর্যন্ত সকলের কাছে তিনি একজন সাদা মনের উদার মানসিকতার ও ন্যায় পরায়ণ পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিতি লাভ করেছেন। উক্ত এলাকার সাধারণ মানুষরা জানান আমরা পুলিশ বললে এক সময় ভয় করতাম পুলিশের কাছে যেকোনো বিষয় নিয়ে যেতে পারতাম না কিন্তু আব্দুর রব স্যার হাইওয়ে থানায় আসার পর থেকে সড়কের যেকোনো সমস্যা নিয়ে আমরা তাঁর কাছে যেতে পারি। একসময় দোহাজারী হাইওয়ে সড়ক নিরাপদ ছিল না যেকোনো মুহূর্তে ডাকাতি, চাঁদাবাজি সহ যে কোন বিপদের সম্মুখীন হতাম আমরা কিন্তু বর্তমানে আমাদের দোহাজারী হাইওয়ে সড়ক নিরাপদ সড়কে রূপান্তরিত হয়েছে যার অবদান একমাত্র আব্দুর রব স্যারের । আমরা তার এই ঋণ কোনদিন শোধ করতে পারব না তিনি একজন ভাল মানুষ ও ভালো পুলিশ কর্মকর্তা ।শুধু তাই নয় তিনি একজন কর্মঠ ব্যক্তি। তিনি দোহাজারী হাইওয়ে থানায় অফিসার ইনচার্জ পদে থাকলে আমাদের এলাকার তথা চন্দনাইশ থেকে লোহাগাড়া পর্যন্ত হাইওয়ে সড়কের আইনশৃঙ্খলার উন্নয়ন হবে এবং দোহাজারী হাইওয়ে সড়ক বাংলাদেশের একটি মডেল সড়ক হিসেবে রূপ নেবে ।বিশেষ করে দোহাজারী হাইওয়ে সড়কের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিদিনই মাদকের ও জুয়ার আখরা বসতো তিনি অফিসার ইনচার্জ হিসেবে যোগদান করার পর থেকে এসব অপরাধ বন্ধ হয়ে গেছে বললেই চলে।