ধর্মভিত্তিক ও ধর্মীয় পরিচয়ে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিল চায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ।

এ ধরনের দলকে নিবন্ধন প্রদান না করা এবং নির্বাচনে ধর্মের ব্যবহার কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে জাসদ।রবিবার (২৪ জুলাই) নির্বাচন কমিশনের (ইসির) সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়ে হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন দলটির পক্ষ থেকে এ দাবি তোলা হয়। সভাপতি হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বে ১৩ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ইসির সংলাপে অংশ নেয়।

জাসদ তাদের প্রস্তাবে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের কঠোর প্রয়োগ করে ধর্মভিত্তিক ও ধর্মীয় পরিচয়ে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিল এবং এ ধরনের দলকে নিবন্ধন প্রদান না করা ও একই নাম বা কাছাকাছি নামে কোনও রাজনৈতিক দলকে নিবন্ধন না দেওয়ার দাবি তুলেছে। এছাড়া নির্বাচনে ধর্মের ব্যবহার কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে তারা।

এছাড়াও জাসদ তাদের প্রস্তাবে জাতীয় নির্বাচন এবং স্থানীয় সরকারসমূহের নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠান; কোনো রাজনৈতিক দলের কোনও নির্বাচনে অংশগ্রহণ বা বর্জনের বিষয়সহ কোনো রাজনৈতিক বিতর্কেই নির্বাচন কমিশনের না জড়ানো; নির্বাচন নিয়ে অসাংবিধানিক ও আইন বহির্ভূত দাবিকে প্রশ্রয় না দেওয়া; নির্বাচন নিয়ে বিদেশি কূটনৈতিকদের অযাচিত নাক না গলানো; জাতীয় নির্বাচনসহ অন্যান্য নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার, ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব নিয়ে কোনও সাংবিধানিক, আইনগত ও প্রশাসনিক ঘাটতি বা দুর্বলতা থাকলে তা সংস্কার; ইভিএমের চিহ্নিত সমস্যার সমাধান এবং একইসঙ্গে ইভিএম ও ব্যালট পদ্ধতিতেও ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি; ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্তি, সংযোজন, বিয়োজন, সংশোধনের প্রক্রিয়াকে আরও সহজ এবং দ্রুতগতিসম্পন্ন; প্রবাসী ভোটার নিশ্চিতকরণের সুপারিশ করেছে।

নির্বাচনি ব্যয়সীমা যৌক্তিকীকরণ ও অর্থের ব্যবহার বন্ধের কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ; নির্বাহী বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্বাচনি আইন লঙ্ঘন ও অসদাচারণের জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান; নির্বাচন কমিশন প্রয়োজনবোধ করলে নির্বাচনকালে জনপ্রশাসনের কাজে প্রতিরক্ষা বাহিনীকে বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটদের অধীনে ব্যবহার করার সুপারিশও করেছে জাসদ।