উজ্জ্বল রায় নড়াইল।।   করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় শ্রমিক সংকটের কারণে হত দরিদ্র অসহায় কৃষকের জমির ধান কেটে দিলেন নড়াইলের জেলা প্রশাসন ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা।উজ্জ্বল রায় (নিজস্ব প্রতিবেদক) নড়াইল জানান,  বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে সদর উপজেলার ডুমুরতলা গ্রামের কৃষক আব্দুল আলিম এর ২৭ শতক জমির ধান কেটে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নড়াইলের উপ-পরিচালক চিন্ময় রায়, সহকারী পুলিশ সুপার মাসুদ রানা,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা সেলিম, সহকারি কমিশনার (ভুমি) নড়াইল সদরকৃষ্ণা রায়, সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জাহিদুল ইসলাম বিশ^াস,কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা মোঃ মাসুদ রানা,ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনিষ্টিটিউশন এর সদও উপজেলার সভাপতি প্রভাত কুমার তরফদার,সাধারন সম্পাদক বাদল কুমার বিশ^াস,মোঃ শোভন সরদার তুহিন সহ আরো অনেকে এ সময় উপস্থিত ছিলেন।সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জাহিদুল ইসলাম বিশ^াস বলেন, আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মোর্ত্তুজার আহবানে কৃষকদের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছি। আজ সকাল থেকে আমাদের অফিসের ২০ জন কর্মকর্তা নিয়ে ধান কাটা শুরু করেছি। এবং যখন কোন অসহায় দরিদ্র কৃষক ধান কাটতে শ্রমিক পাবেনা আমরা তাদের ধান কেটে দিব।কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক চিন্ময় রায় বলেন,আমরা কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা করবো। সব ধরনের ফসলের বিজ বিনমুল্যে সরবরাহ করবো। নড়াইলের কৃষকদের ৫০ ভাগ ধান কাটা সম্পন্ন হয়েছে। এবং বাকি ধানগুলো আগামী ১০/১২ দিনের মধ্যে কাটা সম্পন্ন হবে বলে আশা করা যায়।জেলা প্রশাসক আনজুমান আরাবলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন কৃষকের পাশে থাকতে। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা যখন জানতে পারলাম গারুচোরার অসহায় কৃষক আবদুল আলিম শ্রমিক সংকটের জন্য ধান কাটতে পারছে না, তখন আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কৃষি বিভাগের কর্তাকর্তা ও কর্মচারিরা মিলে আজ তার জমির ধান কাটতে এসেছি। যে কৃষকের শ্রমিক সংকটের জন্য ধান কাটতে অসুবিধা হবে , তারা আমাদের জানালে আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব রকম সহযেগিীতা করব। নড়াইলের প্রশাসন ও সরকার সব সময় দরিদ্র কৃষকের পাশে আছে। আমাদের মাননীয় ২ জন সংসদ সদস্য জনাব কবিরুল হক মুক্তি ও মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা মহোদয় সব সময় আমাদের দেঘভাল করছেন।