হারুনুর রশিদ, নরসিংদী প্রতিনিধিঃ নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার পৌ,এলাকার বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মো. সেক সাদী চাউল ও মজাদার মসলায় নতুন উদ্ভাবনী যন্ত্র (টুয়েটা) দিয়ে পিঠা তৈরি করে কৌতুহল সৃষ্টি করেছেন। যা দিয়ে দৈনিক আয় হচ্ছে  ৪- ৫ হাজার টাকা।

সেক সাদী বলেন, ইউটিউবে ভিডিও দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে দিনাজপুর এক ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ করি । তার দেয়া পরামর্শ নিয়ে ঐখান থেকেই ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিয়ে (টুয়েটা নামক) যন্ত্রটি ক্রয় করি। ফেব্রুয়ারীর শুরু থেকে পিঠা তৈরিতে কার্যক্রম শুরু করি। পিঠা তৈরিতে চাউলের সাথে বিভিন্ন মুখরুচক মসলা মিশ্রণে যন্ত্রের মাধ্যমে কয়েক রখম পিটা তৈরি করে থাকি। ডিজেল ইঞ্জিনের সাহায্যে যন্ত্রটি পরিচালিত হয়। আমি ও সহকারী জিল্লু কে নিয়ে সারাদিন বাড়ি বাড়ি গিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কাজ করে যাচ্ছি । ১ কেজি চাউল ও মসলার মিশ্রণে পিঠা তৈরি করে দেয়ার পর মজুরি বাবদ খরচ নিচ্ছি ৪০ টাকা। যা তৈরিতে সময় ব্যায় হয় ১-২ মিনিট। গড়ে প্রতিদিন ৪- ৫ হাজার টাকা পাচ্ছি।পূর্বে বেকার সমস্যায় ভুগছিলাম এখন আলহামদুলিল্লাহ এটা নিয়ে ভালো আছি। নতুন উদ্ভাবনী যন্ত্র দিয়ে পিঠা তৈরিতে এলাকায় কৌতূহলের সৃষ্টি হয়েছে।

পূর্বহরিপুর গ্ররামের রুবেল বলেন, এমন যন্তের মধ্যেমে পিঠা তৈরির কথা শুুুনেছি। আজ তৈরি দেখে ও খেয়ে খুব ভালো লাগছে। চাউল থেকে অল্প সময়ের মধ্যে সুস্বাদু ও মচমচে খাবার। শিশু তাসিফের নিকট জানতে চাইলে বলেন, মেশিনে তৈরি মচমচে মজাদার পিঠা খেয়ে তৃপ্তিতে আনন্দ পাচ্ছি।  পিঠা তৈরি দেখতে মানুষের ডল নামতে দেখা যার । পিঠা খেয়ে তৃপ্তি পেয়ে তৈরিতে অনেকে আগ্রহ দেখাচ্ছে।