বেল্লাল হোসেন নাঈম, স্টাফ রিপোর্টারঃ নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে চিহ্নিত চাঁদাবাজ রাসেল, জয়নাল ও রকি কর্তৃক সাংবাদিক হোসাইন মাহমুদকে লাঞ্চিত ও মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার প্রতিবাদে চাঁদাবাজদের গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন করেছে সোনাইমুড়ীতে কর্মরত সাংবাদিকরা।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টার দিকে সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে সোনাইমুড়ীতে কর্মরত ছাড়া ও চাটখিল ও নোয়াখালী জেলাতে কর্মরত সাংবাদিকরা এবং স্থানীয় সুশীল সমাজ ও ব্যবসায়ী বৃন্দ সংহতি জানিয়ে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। ঘন্টা ব্যাপী এ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সোনাইমুড়ী উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি খোরশেদ আলম শিকদার, সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি খোরশেদ আলম, বেগমগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও মাই টিভি জেলা প্রতিনিধি গিয়াস উদ্দিন মিঠু, বৃহত্তম সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি ফারুক আল ফয়সাল।

সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোছাইন ভূঁইয়ার সঞ্চালনায় মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, সোনাইমুড়ী উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোশারেফ হোসেন সুমন, দৈনিক এই আমার দেশ’র-স্টাফ রিপোর্টার মোঃ বেল্লাল হোসেন নাঈম, মানবজমিন প্রতিনিধি ও বৃহত্তম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম মানিক, দৈনিক যুগান্তর প্রতিনিধি সেলিম মিয়া, দৈনিক মাতৃভূমির জেলা প্রতিনিধি পলাশ উদ্দীন, এশিয়ান টিভি নোয়াখালী প্রতিনিধি মাহাবুবুর আলমসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বক্তারা বলেন, ঘটনার ৩ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত আসামীদের গ্রেপ্তার ও মোবাইল উদ্ধার করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তারা অবিলম্বে অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান। অন্যথায় আরও কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে বক্তাগণ বলেন।

উল্লেখ্য, সোনাইমুড়ী উপজেলার চিহ্নিত চাঁদাবাজ রাসেল, জয়নাল ও রকিসহ গত ২৩ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে সোনাইমুড়ী বাজারের প্রধান সড়কের ব্যাংক রোডের মুখে ফল ব্যবসায়ীর নিকট চাঁদা দাবী করে। ব্যবসায়ী চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় তার দোকানের ফল রাস্তায় ফেলে দেয়। এ ঘটনার ভিডিও চিত্র ধারণ করছিলেন সাংবাদিক হোসাইন মাহমুদ। ভিডিও করতে চাঁদাবাজরা দেখে ফেলায় তারা হোসাইনের উপর চড়াও হয়।

এসময় তারা হোসাইনকে লাঞ্চিত করে তার হাতে থাকা ভিডিও করা মোবাইলটি ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ঐ দিন বিকেল ৪টার দিকে হোসাইন মাহমুদ বাদী হয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে সোনাইমুড়ী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার ৩ দিন পার হলেও পুলিশ এখন পর্যন্ত কোন অপরাধীকে গ্রেপ্তার ও মোবাইলটি উদ্ধার করতে না পারায় সাংবাদিকরা মানববন্ধনের ডাক দেন।