মোস্তাফিজুর রহমান লালমনিরহাটঃপানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এম,পি বলেছেন,তিস্তা পাড়ের লোকের আর কান্না থাকবে না। তিস্তা নদীকে ঘিরে সরকারের মহা পরিকল্পনা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দাতাদের সাথে কথা বলেছেন,তাদের আগ্রহ রয়েছে। তবে এটি বাস্তবায়নে কিছু সময় লাগতে পারে।শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর ভাঙ্গন পরিদর্শনকালে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন,এক কিলোমিটার নদীর তীরে মাটির বাঁধ দিতে দেড় কোটি টাকা খরচ পড়ে। আর ব্লক দিয়ে করতে খরচ হবে ৩০ কোটি টাকা। তারপরেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা না বলেননি। ১১৩ কিলোমিটার তিস্তা পাড় ঘিরে রয়েছে সরকারের মহাপরিকল্পনা। প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এম,পি আরো বলেন,প্রকল্প শুরু করতে এক থেকে দেড় বছর সময় লাগতে পারে। ভাঙ্গন রোধে সাময়িক প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। কাজটি বাস্তবায়ন করতে ৫০ কোটি টাকার নীচে হলে পরিকল্পনা মন্ত্রী তা পাশ করতে পারবেন আর ৫০ কোটির উপরে হলে তা একনেকে অনুমোদন করতে হয় বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন। তিন বলেন,ভাঙ্গন হলে ঠিকানা বিহীন হয়ে যায় লোকজন। জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য বৈশ্বিক পরিবর্তন হচ্ছে। উজান থেকে পানি নেমে আসে,পানির সাথে সাথে প্রতি বর্ষায় এক বিলিয়ন মেঃটন পলিমাটি চলে আসে। তিনি তিস্তা পাড়ের লোকজনকে প্রধানমন্ত্রীর উপর আস্থা রাখতে বলেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যদি না থাকে বাংলাদেশের আর উন্নয়ন হবে না। জাহিদ ফারুক তিস্তা পাড়ের লোকজনের উদ্দেশ্যে বলেন,নৌকা ছাড়া আর যেন অন্য জায়গায় ভোট দিছেন,তাহলে আপনারা আল্লাহর কাছে দায়ী থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই এলাকার জনগণের দুঃখ কষ্টের জন্য যা যা করা দরকার তিনি তা করবেন।প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এম,পির বক্তব্য শেষে মোবাইল ফোনে তিস্তা পাড়ের লোকজনের উদ্দেশ্যে স্থানীয় সাংসদ ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এর, পিও বক্তব্য রাখেন।এসময় পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মসহমুদুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মোঃ আবু জাফর, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম কামাল আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল ইসলাম, ইউএনও মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক ইমরুল কায়েস, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম, মহিষখোচা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
শেষে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এম, পি নৌকা যোগে তিস্তা নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন।