লা লিগার বেঁধে দেওয়া বেতনসীমার কারণে ক্লাবের সেরা খেলোয়াড়টিকেই ধরে রাখতে পারেনি বার্সেলোনা।

গত শুক্রবার বার্সা সভাপতি হোয়ান লাপোর্তা আনুষ্ঠানিকভাবে ন্যুক্যাম্পে মেসি অধ্যায়ের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। রোববার মেসিও অশ্রুভেজা চোখে বিদায় নেন প্রিয় ক্লাব থেকে।

এর পরও বার্সা সমর্থক ও মেসিভক্ত অনেকেই বিষয়টি মানতে পারছেন না। ২১ বছর ধরে যে জার্সি গায়ে চড়িয়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন মেসি, তা কী করে খুলে ফেলা সম্ভব!

মেসি অবশ্য স্বাচ্ছন্দ্যেই পিএসজির জার্সি গায়ে তুলেছেন। ১০ নম্বর জার্সি বিসর্জন দিয়ে ৩০ নম্বর জার্সি কাছে টেনেছেন।

অবশ্য পিএসজিতে নাম লেখানোয় বার্সা সমর্থকদের অনেকেই খুশি। কারণ ফরাসি ক্লাবে যোগদানের কারণে মেসিকে শিগগিরিই নিজের সাবেক ক্লাব বার্সার মুখোমুখি হতে হবে না। তবে একেবারেই যে হবে না, তা কিন্তু নয়।

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে বার্সা-পিএসজি একই গ্রুপে পড়ে গেলে কিংবা নকআউট পর্বে ড্রয়ের কারণে পিএসজি-বার্সেলোনা মুখোমুখি হয়েও যেতে পারে!

এমন দ্বৈরথে মেসি কী করবেন? পারবেন ২১ বছরের সম্পর্ক যে ক্লাবের সঙ্গে তার বিপক্ষে মাঠে নামতে?

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্যারিসের পার্ক ডি প্রিন্সেসে পিএসজির হয়ে প্রথমবার সংবাদ সম্মেলনে কথা বলতে এসেই এমন বিব্রতকর প্রশ্নের মুখোমুখি হন মেসি।

জবাব দিতে গিয়ে মেসিও প্রথম থতমত খেয়ে যান। পরে অবশ্য দুই ধরনের কথা বলে পরিস্থিতি সামলে নিলেন।

বললেন, ‘বার্সা-পিএসজি মুখোমুখি! হ্যাঁ, চ্যাম্পিয়নস লিগে হতেই পারে। আমাদের অবশ্যই অপেক্ষা করতে হবে এ জন্য। একদিক থেকে চিন্তা করলে এটি দুর্দান্ত একটি ব্যাপার হবে। আশা করি দর্শকরাও তখন উপস্থিত থাকবে। তবে অন্যদিক থেকে চিন্তা করলে বিষয়টি আমার জন্য সত্যিই কষ্টকর। অন্য দলের জার্সি গায়ে নিজের বাড়ির উঠোনে খেলতে নামা- সত্যি খুব কষ্টকর বিষয় হয়ে দাঁড়াবে আমার জন্য।’