মোস্তাফিজুর রহমান, লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ সিনিয়র সহকারী সচিব পদন্নোতি পেয়ে বিদায় নিলেন লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শামীমা সুলতানা। এসময় বক্তব্য দিতে গিয়ে কেঁদে ফেলেছেন তিনি। দায়িত্ব নেয়ার পর দক্ষতার সঙ্গে তা পালন। দাদাল মুক্ত ডিজিটাল ভুমি সেবা দৃষ্টি নন্দন ভুমি অফিস সহ সমস্ত অফিস গুলো কে ডিজিটাল করে দিয়ে!ছেন স্লল্প সময়েই ভুমি সেবা তার সেবা কর্মদক্ষতায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন তাই পেয়েছেন ভুমিমন্ত্রনালয়ের শ্রেষ্ঠ সনদ । বিদায় বেলায় সাধারণ মানুষসহ অনুষ্ঠান মঞ্চে হৃদয় বিদারক পরিবেশ সৃষ্টি হয়।মঙ্গলবার (২১সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে হলরুমে আয়োজনে ইউএনও সামিউল আমিনের সভাপতিত্বে বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন।বক্তব্যে শামীমা সুলতানা বলেন, ২০১৯ সালের ২ জুন হাতীবান্ধায় যোগদ দান করি। প্রায় আড়াই বছর স্বামী ইউএনও সামিউল আমিনের সঙ্গে কাজ করেছি। কাজ করতে গিয়ে কখনো বুঝতে দেয়নি যে স্বামী-স্ত্রী মিলে উপজেলার দায়িত্ব পালন করছি। তিনি আমার স্যার ছিলেন। তাই সেভাবেই কাজ করেছি। হাতীবান্ধার মানুষ অনেক ভালো।
কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ভবিষ্যৎতে যেখানেই থাকি হাতীবান্ধার মানুষ কে ভুলবনা । যতটুকু পেরেছি, এলাকার মানুষের জন্য করেছি। ভুল হলে আমাকে ক্ষমা করবেন। কাজ করতে গেলে ভুল হতেই পারে এটাই স্বাভাবিক। তাই সবার কাছে একটি চাওয়া যে আমার ভুলের কারণে মনে কেউ যেন কষ্ট না পায়।
অনুষ্ঠানে থাকা উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধিসহ সব পেশার মানুষ তার এ বিদায় কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না। আড়াই বছর ও করোনা ভাইরাস মহামারী সময়ে যেভাবে মানুষের ঘরে ঘরে তিনি খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন তা অতীতে কোনো কর্মকর্তা করেননি। আর জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা ভাইরাস মহামারী সময়ে দিন-রাত পরিশ্রম করে সবার ভালোবাসার পাত্রে পরিণত হয়েছেনে শামীমা সুলতানা। এ কারণে বিদায় বেলায় সবার সঙ্গে নিজেও কেঁদেছেন।
অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ওসি এরশাদুল আলম, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর জব্বার, সিঙ্গিমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন দুলু ও পাটিকাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুল আলম সাদাত, হাতীবান্ধা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি আলতাফ হোসাইন সুমন ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাফা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নূরল হক, জেলা মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান সাজু। সাংবাদিক আসাদ হোসেন রিফাত, মাহির খাঁন,নুরনবী সরকার,নিয়াজ আহাম্মেদ শিপন সহ প্রশাসনের কর্তা ও সুধীজন।