নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বীমাকে জনপ্রিয়, এর প্রসার এবং এ নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে বীমা সংশ্লিষ্ট সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে একযোগে কাজ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বীমা খাতকে জনপ্রিয় করার আহ্বানও জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি নিজে গিয়ে সম্মাননা দিতে পারলে ভালো লাগত। কিন্তু করোনা আমাকে একরকম বন্দি করে দিয়েছে। সমস্যা কাটিয়ে উঠতে আমরা টিকা নিয়ে এসেছি, দেওয়াও হচ্ছে। টিকা নেওয়ার পরও স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলতে হবে। আমাদেরকে নিয়মিত হাত ধোয়া, মাস্ক পরা, এগুলোর মাধ্যমে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে হবে।

আজ সোমবার (১লা মার্চ) প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হয়ে ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বীমা’ উদ্বোধন করে তিনি এসব কথা বলেছেন। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘জাতীয় বীমা দিবস-২০২১’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে অর্থমন্ত্রী আ হ মমুস্তাফা কামাল শিক্ষার্থীদের হাতে শিক্ষা বীমার টাকা তুলে দেন।

অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেন ও আর্থিক বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলাম। এবারের বীমা দিবসের স্লোগান- ‌‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, বীমা হোক সবার।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সরকারপ্রধান বলেন,  এতে করে এ খাতে স্বচ্ছতা ও স্পষ্টতা যেমন আসবে ; তেমনি কাজেও গতি বাড়বে। জীবন বীমা, সাধারণ বীমা ও ইনসুরেন্স ইনস্টিটিউটকে অটোমেশনের আওতায় আনতে ৬৩২ কোটি টাকার কাজ চলছে। প্রধানমন্ত্রী বীমা খাতে দুর্নীতি বন্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার পাশাপাশি সবাইকে সতর্ক থাকারও আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন,  অনেকে বীমা করে কৃত্রিমভাবে নিজের প্রতিষ্ঠান বা পণ্যের ক্ষতি করে বিশাল অংকের ক্ষতিপূরণ দাবি করেন। এ বিষয়টি নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। যারা তদন্ত করবে তারা যেন প্রশিক্ষিত ও দক্ষ হয় এবং কোনোভাবে প্রভাবিত না হয়ে সঠিক তদন্ত করে। কেননা অনেক সময় এরা অল্প ক্ষতিকে বেশি করে দেখায়।