নাঈম মিয়া, ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ কিশোরগঞ্জের ভৈরবে স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে মাস্কবিহীন বিনা কারণে ঘোরাঘুরি করায় এবং সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল চালানোর অপরাধে ৩০ জনকে অর্থদণ্ড প্রদান করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার (৩১ জুলাই) ভৈরব উপজেলার বিভিন্ন বাজার ও সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা পরিচালনা করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.জুলহাস হোসেন সৌরভ।

এসময় মাস্ক পড়া নিশ্চিত করতে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়েছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.জুলহাস হোসেন সৌরভ বলেন,

কিশোরগঞ্জ জেলার সম্মানিত জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোহাম্মদ শামীম আলম স্যারের সদয় নির্দেশনা অনুসারে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ মোকাবিলায় সরকারের কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে (৩১ জুলাই) ভৈরব উপজেলার বিভিন্ন বাজার ও সড়কের বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এসময় মাস্ক পরিধান না করায় ও স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করায়, বিনা কারণে ঘোরাঘুরি করায় এবং সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও হেলমেটবিহীন মোটরসাইকেল চালানোর অপরাধে ৩০ জন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে ১৭,৬০০/- টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। এছাড়া অসাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে খাদ্য সামগ্রী উৎপাদন করায় ১টি বেকারিকে ২০,০০০/- টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। এছাড়াও ২ জন মাদক সেবীকে যথাক্রমে ৬ মাসের ও ৩ মাসের বিনাশ্রম জেল এবং ১০০০/- টাকা করে অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় সহযোগিতা করেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। জনস্বার্থে মোবাইল কোর্টের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।
সবাই মাস্ক পরিধান করি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, মাদককে না বলি।