জেপুলিয়ান দত্ত জেপু, চকরিয়া থেকে

গেল ২০২১ সালের ২৬ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত চর্তুথ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চকরিয়া উপজেলার ১৭নং খুটাখালী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ফুটবল প্রতিক নিয়ে মেম্বার পদে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন আকতার কামাল।

তিনি তার প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর কাছে সৃষ্ট কৌশলে সামন্য ভোটে পরাজিত হয়। পরাজয় হয়েও নিরাশ না হয়ে,ওয়ার্ডের যে সব ভোটারের, ভোটের মাঠে সহযোগিতাকারী ও শুভাকাঙ্খি হিসেবে ছিলেন। বর্তমান ও ভবিষ্যৎতে তাদের পাশে থাকার নিমিত্ত্বে একটি কালজয়ী উদ্যোগ নিয়েছেন।

যার ধারাবাহিকতায় শনিবার (১৫ জানুয়ারী) সকাল ১১টা থেকে বিকেলে ৪টা পর্যন্ত শুভাঙ্খাকীদের নিয়ে বনভোজনের আয়োজন শেষ করার পূর্বে সবাইকে কাঁদিয়ে ছাড়লেন।

অনুষ্ঠিতব্য বনভোজনের আলোচনা সভায় ওয়ার্ডের বিশিষ্ট মুরব্বি মোঃ ইব্রাহিম সভাপতিত্বে, দৈনিক দেশ ও দৈনিক রূপালী সৈকত পত্রিকার চকরিয়া প্রতিনিধি সাংবাদিক জিয়াউল হক জিয়ার সঞ্চালনায়,মো:সোহাগের করা কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু হয়।

আলোচনা সভায় উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন,আকতার কামাল। তিনি বলেন-গেল নির্বাচনে আপনার আমার জন্য নিঃস্বার্থ ও নিরলসভাবে পরিশ্রম করেছেন। আমি আপনাদের ছোট-বড় সকলের কাছে চিরকৃতজ্ঞ। আমি নির্বাচনের শেষে, এখনো আপনাদের জন্য চিন্তা করছি। আপনাদের সকলের বাড়ী-ঘরে গিয়ে আবারো দোয়া চাচ্ছি।আমি নির্বাচনের পূর্বে এলাকাকে যেভাবে উন্নয়ন দিয়ে সাজিয়েছি।ভবিষ্যৎতে এলাকার উন্নয়ন সহ,অসহায় পরিবার,বিপদ-আপদ ও সুখে-দুঃখে পাশে থাকবো।আমি নির্বাচিত প্রতিনিধিদেরকে অভিনন্দন ও শ্রদ্ধা চোখে দেখে বাকী সময় কাটাব। আমার মনে কোন রাগ,হিংসা,অহংকার,ভেদাভেদ নেই।আমি চাই এলাকার উন্নয়ন,জনগণের সুখ,শান্তি,সমৃদ্ধি।সুতরাং আপনারা আমি নগণ্য ব্যক্তিকে ভালোবেসে নির্বাচন সহ আজকে পর্যন্ত আছেন,ভবিষ্যৎতেও এভাবে থাকবেন।তাই আমি আমার ভোটের মাঠে যারা কষ্ট করে আমাকে বিজয় করার চেষ্টা করে আসছিলেন।সেই শুভাঙ্খাকী,সহানুভূতিপূর্ণ ব্যক্তিদেরকে সাথে অন্তত এক বেলা ডাল,ভাত খাওয়ার লক্ষে আজকের এই বনভোজন।আজকেও আপনার আমাকে ভালোবেসে শত ব্যস্ততার মাঝেও প্রায় সাড়ে তিনশত মানুষ উপস্হিত হয়ে প্রমাণ করলে,সত্যি আপনারা আমাকে নিজের ছেলে,ভাই,বন্ধুর মত এখনো ভালবাসেন।বলতে না বলতে কাঁদলে আকতার কামালে,কাঁদালেন সকল উপস্হিতি শুভাঙ্খাকীদেরকে।সাথে-সাথে সবুজ বনায়নের গাছ-গাছালিও নিঃস্তদ্ধ হয়ে যায়।পরে উপস্হিত সকলেই একই সুরে বলে উঠলে,আমরা আপনার সাথে আছি,ভবিষ্যৎতেও থাকব ইনশাল্লাহ।

উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন,শফিকুর রহমান(সাবেক শফি মেম্বার),মনজুর আলম (সাবেক মনজুর মেম্বার), মিজবাউল হক সোহেল, রেজাউল আকতার হামিদ,মোঃ সায়েম,আলতাজ মিয়া, রফিকুল ইসলাম, আবুল কালাম,ছৈয়দ আহমদ ও নাছির উদ্দিন সহ উপস্হিত সাড়ে তিনশত ব্যক্তিগণ ।

বক্তরা বলেন,ভোটের পূর্বে আকতার কামাল অত্র ওয়ার্ডের ৫০ বছরের অবহেলিত গ্রামীণ সড়কের উন্নয়ন,অসহায় পরিবার,গরীব মেধাবী শিক্ষার্থী,রোগাক্রান্ত ব্যক্তি,গরীব মেয়েদের বিবাহে সহ সকল কাজে আর্থিক সহযোগিতা করে এসেছেন।পরে নির্বাচনে অংশ নিলে,আমরা তার উদ্যমী সাহস,সহজলভ্য মন দেখে তাকে জনপ্রতিনিধি করার চেষ্টা করি।আমরা ভোটে জয় ফেলেও,কেন্দ্রের প্রশাসনিক মেকানিজমে হেরে গিয়ে পরাজিত হয়েছে।তবু সেই কামাল সাহস না হারিয়ে,টেনশন না করে,নির্বাচনী পরবর্তী সহিসংতা না করে,পূণরায় সকলের সাথে হাসি-মূখে কর্থাবার্তার মাধ্যমে আজ যে শুভাঙ্খাকীদের নিয়ে আনন্দ,উল্লাসের মেতে উঠার মত বনভোজনের আয়োজন করেছেন।আমাদের দেখামতে নজির বিহীন কান্ড।এমন সৎ,সাহস,নির্লোভ,পরপোকারী ব্যক্তির পাশে আমরা আছি ও ভবিষ্যৎতেও থাকবে বলে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছেন।