এথিনা আক্তার, টাঙ্গাইল থেকেঃ টাঙ্গাইল শহরের প্রতিটি মানুষের কাছে একটি পরিচিত ও যন্ত্রণাদায়ক শব্দের নাম হচ্ছে ‘যানজট’। সকালে ঘুম থেকে উঠে ঘরে ফেরার আগ পর্যন্ত জনসাধারণের নিস্তার নেই এই মরণফাঁদ থেকে। এই অবর্ণনীয় সমস্যা নিয়েই দুর্ভোগে দিন কাটাচ্ছে এই শহরের জনগণ।

ঢাকা শহরের পার্শ্ববর্তী এবং ঐতিহ্যবাহী একটি জেলা হচ্ছে টাঙ্গাইল। এ শহরের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বহু ঐতিহাসিক স্মৃতিচিহ্ন। এই শহরবাসীর প্রাত্যহিক জীবনযাপনের উপর মারাত্মকভাবে প্রভাব ফেলছে যানজট নামক ব্যাধি। দিনকে দিন এই ব্যাধিটি মারাত্মক আকার ধারণ করছে। সমস্যাটি এতটাই প্রকট আকার ধারণ করেছে যে টাঙ্গাইল শহরের স্বাভাবিক জীবন যাপন মনে হয় বহু দুরের পথ। ভয়াবহ যানজটের কারনে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী, ব্যবসায়ী, হকার, দিনমজুর বা দোকানদার কারো পক্ষেই সময়মতো নিজ নিজ কাজ করা সম্ভবপর হয়ে উঠছে না।

শহরের নির্দিষ্ট কিছু স্থানে যানজট ও এর ফলে সৃষ্ট দূর্ভোগ সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য করা গিয়েছে। বিশেষ করে ‘টাঙ্গাইল কুমুদিনী কলেজ’ এর সামনের রাস্তা এবং আশেপাশে যানজটের অবস্থা সত্যিই অসহনীয় পড়েছে। এতে শিক্ষার্থীদের সময়মতো চলাচলে পরিলক্ষিত হচ্ছে বিশাল সমস্যা। সঠিক সময়ে কর্মস্থলে পৌঁছাতে পারছেনা অফিসগামী এবং চাকুরীজীবিরা। অন্যদিকে প্রতিনিয়ত বাড়ছে গাড়ির সংখ্যা। রাস্তায় যান চলাচলের জায়গার অভাবে বাড়ছে যানজট। এ ছাড়া গাড়ি চালকদের অজ্ঞতা, রিকশার আধিক্য, ট্রাফিক নিয়ন্ত্রকের উদাসীনতা, ট্রাফিক আইন মেনে না চলাতেই প্রতিনিয়ত বাড়ছে যানজট। পর্যাপ্ত পার্কিং স্পেসের অভাবও যানজটের বড় একটা কারন। কর্তৃপক্ষের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ এখন সময়ের দাবী।