আশুলিয়া থানা ধীন ধামসোনা ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের দরগার পাড় এলাকায় মাদক সেবনে বাধা দেওয়ায় এক দোকানদারকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা। ও তারা দোকানে ভাঙচুর চালিয়েছে স্থানীয় কিছু মাদক সেবকরা। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর স্ত্রী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।

বৃহষ্পতিবার (১২ আগস্ট) বিকেলে ঘটনাস্থলে গিয়ে দোকানে হামলার ঘটনায় ভাঙচুরের দৃশ্য দেখা যায়।

এরআগে, গত শনিবার (৭ আগস্ট) দুপুরে আশুলিয়ার শিমুলতলার দরগাহ পাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
থানায় অভিযোগের পর আবারও দোকানে এসে হুমকি প্রদান করে মাদক ব্যবসায়ীরা, তার মেয়েকে গলায় ছুরি দরেছিলো বলে জানান ভুক্তভোগী।

অভিযুক্তরা হলো- ওই এলাকার স্থানীয় জলিল মীর (৪৮), তার ছেলে নাজমুল (৩০) ও ইয়ার হোসেন মীরের ছেলে ইব্রাহিম মীর (৩০)।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত শনিবার দুপুরে ঘটনাস্থলে মাদক সেবন করে পরিবেশ নষ্ট করার সময় শহিদুল ইসলাম মীর নামের এক যুুবক তাদেরকে বাধা প্রদান করেন। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে বাগবিতন্ডার সৃষ্টি হয়। এ সময় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে নাজমুল নামের এক মাদক সেবনকারী ওই যুবকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে। এ সময় সে সরে গেলে তার পিছনে ছুরির আঘাত লাগে। সে সময় তারা ওই যুবকের দোকানে ভাঙচুরও চালায়। এ সময় স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তারা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
এ ব্যাপারে শহিদুল ইসলাম মীর বলেন, আমার উপর যে হামলা হয়েছে, আমি এর বিচার চাই। হামলাকারীদের কঠিন শাস্তি চাই।

এ অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শফিউল্লাহ শিকদার বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি, ঘটনা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে, তদন্ত শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

অন্যদিকে, বৃহষ্পতিবার (১২ আগস্ট) বিকেলে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহিদুল মীরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ সহ তাকে সাহ্য সহযোগিতা করায় অভিযুক্তরা রাশেদ ভুইয়া নামের এক যুবককে হত্যার হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।