স্বপন আলী, মেহেরপুর: মেহেরপুর পৌরসভার নব–নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের লাল গালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।
রবিবার বেলা ১১ টার দিকে পৌর মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটনের নেতৃত্বে নির্বাচিত ৯ জন কাউন্সিলর ও ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পৌরসভায় প্রবেশ করলে তাদেরকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়। এসময় পৌরসভার কর্মীরা মেয়র এবং কাউন্সিলরদের ফুলের পাঁপড়ি ছিটিয়ে বরণ করে নেন।পরে মেহেরপুর পৌরসভার কালাচাঁদ মেমোরিয়াল হল মিলনায়তনে নব–নির্বাচিত মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরদের আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ ও সংবর্ধনা দেওয়া হয়। মেহেরপুর পৌরসভার সচিব জিএম ওবায়দুল্লাহ’র সভাপতিত্বে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মেহেরপুর পৌরসভার সংবর্ধিত মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম রসুল, মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ–সভাপতি সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম,পৌর মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটনের পত্নী আরিফা আক্তার, মেহেরপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি ইকবাল হোসেন বুলবুল, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান। মেহেরপুর অরনীর সভাপতি নিশান সাবেরের সঞ্চালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আল মামুন,৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত আলী, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুর রব প্রমূখ।এর আগে মেয়র ও কাউন্সিলররা শোভাযাত্রা সহকারে মেহেরপুর পৌর কার্যালয় চত্বরে এসে পৌঁছান। মেহেরপুর পৌরসভার মেয়র মাহফুজুর রহমানের রিটনের নিজস্ব কার্যালয় থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় নব–নির্বাচিত পৌর মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন মেহেরপুর শহীদ সামসুজ্জোহা নগর উদ্যানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে পুস্পমাল্য অর্পণ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর সহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীরা এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন। পরে শোভাযাত্রাটি পৌর কার্যালয় প্রধান ফটকের সামনে এসে পৌঁছালে সেখানে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়। লাল গালিচার দুপাশে পৌরসভার কর্মীরা মেয়রকে পুষ্প মাল্য পরিয়ে এবং পুষ্পবৃষ্টি ছিটিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেন। পৌরমেয়র মাহফুজুর রহমান রিটনের নেতৃত্বে নব–নির্বাচিত কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরা পৌরসভা প্রাঙ্গণে পৌঁছানোর সাথে সাথে পৌরসভার সমস্ত ফোয়ারা গুলো উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। এসময় সেখানে এক আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।