নিজস্ব প্রতিবেদকঃ যশোর সদরের ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে সন্তান প্রসবের সময় নবজাতকের পা ধরে টেনে ছিড়ে এনেছেন মোমেনা নামের এক আয়া। এসময় শিশুর মাথা মায়ের পেটের মধ্যেই থেকে যায়। গতকাল শনিবার রাতে আন্না (২৫) নামে এক গৃহবধূর সন্তান প্রসবের সময় এ ঘটনাটি ঘটেছে।

স্বজনদের অভিযোগ, সন্তান প্রসবের সময় সেখানে দায়িত্বরত সেবিকা ও চিকিৎসক কেউ উপস্থিত ছিলেন না। এমনকি ঘটনার পর ওই আয়া ওয়ার্ড থেকে পালিয়ে যান। অন্যদিকে, কর্তৃপক্ষ বলছেন, গর্ভের নবজাতক মৃত অবস্থায় ছিলেন।

যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার গাজীপুর গ্রামের ইয়াকুব আলীর স্ত্রী আন্না বেগমকে শুক্রবার রাত আড়াইটার দিকে প্রসব কালিন ব্যাথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরের দিন শনিবার সকালে ওয়ার্ড ডা. তানজিলা আখতার একবার রোগীকে দেখে আল্ট্রাসনো করতে বলেন। আল্ট্রাসনো রিপোর্টে ২০ সপ্তাহের বাচ্চার উপস্থিতি মেলে। তার ওজন ছিলো ৩৩৯ গ্রাম। চিকিৎসকের পরামর্শে জরায়ুর মুখ খোলার ওষুধ দেয়া হয়। যাতে করে মৃত বাচ্চাটি নরমালে প্রসব হয়। শনিবার রাত সাড়ে ৭ টার দিকে আন্নার গর্ভে থাকা ছেলের দুই পা বেরিয়ে আসলে ওই ওয়ার্ডে দায়িত্বরত আয়া মোমেনা রোগী আন্নাকে ওটিতে নিয়ে যান। কিন্তু চিকিৎসক সেবিকার অনুপস্থিতিতে আয়া মোমেনা নবজাতকের  দুই পা ধরে টানাটানি করার সময় গলা থেকে ছিড়ে চলে আসে এবং বাকী অংশ অর্থাৎ মাথা গৃহবধূর পেটের মধ্যে থেকে যায়। এরপর রোগীকে ফেলে ভয়ে তিনি পালিয়ে যান। রোগীর চিৎকারে স্বজনরা গিয়ে এই অবস্থা দেখে চেচামেচি শুরু করেন। তখন সেবিকারা গিয়ে কাউকে কিছু না বলার জন্য জানান এবং আয়ার কান্ডে বাক শক্তি হারিয়ে ফেলেন আন্না ও তার পরিবারের লোকজন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, আয়ার বাড়াবাড়িতে এমনটা হয়েছে। চিকিৎসক সেবিকার অনুপস্থিতিতে তিনি এই কাজ করতে পারেন না।

তিনি আরো জানান, গৃহবধূর পেটে নবজাতকটি আগেই মারা গিয়েছিলো। বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।