রাজশাহী ব্যুরোঃ রাজশাহীতে পেঁয়াজ খোলা বাজারে বিক্রি শুরু ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) ৪৫ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। সেই পেঁয়াজ বিক্রির পরও রাজশাহীর বাজারে কোন প্রভাব নেই খোলা বাজারে এখনও বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। বাজার মনিটরিং কর্মকর্তা বলছেন, আগামী এক সাপ্তাহের মধ্যেই কমে আসবে পেঁয়াজের দাম।

রাজশাহী নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বুধবার বিভিন্ন বাজার পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২২৫ টাকায়। আর খুচরা বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকায়। ক্রেতার বলেন, টিসিবির পেঁয়াজে স্বাদ ভাল না তাই বেশি দাম হলেও অল্প করে পেঁয়াজ কিনছেন।

ব্যবসায়ীরা বলেন, আগামীতে আরও পেঁয়াজ অমদানী হচ্ছে তা ছাড়া নতুন পোঁয়াজ বাজারে আসবে তখন এটি কম কমে যাবে। আর টিসিবির পেঁয়াজ চাহিদার অনেক কম । ফলে বাজারেই নির্ভর হতে হচ্ছে বেশিরভাগ ক্রেতাকে।

রাজশাহী সাহেব বাজার সবজি বাজাওে পেঁয়াজ কিনতে এসেছেন আতিকুর রহমান তিনি জানান, টিসিবি’র নাইন ধরে নিতে হয় তা ছাড়া পেঁয়াজ তো সবাই পায় না। কারণ প্রতিদিন এক টন করে পেঁয়াজ দিবে সেটার চাহিদার ত‚লনায় অনেক কম। তাই বাজারই ভরসা। তিনি জানান দ্রæত দাম কমানোর পদক্ষেপ নিতে টিসিবিকে আরও বেশি পরিমাণ পেঁয়াজ বিক্রি করতে হবে।

রাজশাহীর নিউমার্কেটের ব্যাবসায়ী সাগর আলী বলেন, আমাদের পেঁয়াজ কেনায় পড়েছে ২২০ টাকা। এতে করে আমাদের বিক্রি করতে হচ্ছে ২২৫ দাকা দরে তবে আরো পেঁয়াজ অমদানী করলে তখন এটি কমে যাবে।

রাজশাহী জেলা বাজার মনিটরিং কর্মকর্ত মনোয়ার হোসেন বলেন, আগামী সপ্তাহে আরও পেঁয়াজ অমদানী হবে। আশাকরা যায় আগামী সপ্তাহ থেকেই দাম কমতে শুরু করবে।
অন্য দিকে ক্রেতাদের বাড়তি চাপ সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে টিসিবির ডিলারদরা। প্রতিদিন পাঁচটি পয়েন্টে ১টন করে পেঁয়াজ দিচ্ছেন তারা। বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষিতে জনপ্রতি ১ কেজি করে পেঁয়াজ দেয়া হচ্ছে। তবে এটি আরও বাড়ানোর প্রক্রিয়ার পাশাপাশি বাড়ার স্থিতিশীল না হওয়া পর্যন্ত এ কার্যত্রম চালিয়ে যাবে বলে জানায় টিসিবির কর্মকর্তা।