হাজী সাইফুল ইসলাম, স্টাফ রিপোর্টারঃ চলমান লকডাউনে স্তব্ধ সারা বাংলাদেশ, তবুও থেমে নেই আমঝুপি মউক উন্নয়ন এর সালিশি নামক বানিজ্য।

যেখানে পাঁচ জনের বেশি এক জায়গায় সমাগম হলে চলছে পুলিশের হানা। সরকারি সকল বিধিনিষেধ বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মানব উন্নয়ন কেন্দ্র মউক তাদের প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম নির্দ্বিধায় চালিয়ে যাচ্ছেন। মানা হচ্ছে না সরকারি বিধি নিষেধ, নেই কোন প্রশাসনিক নজরদারি।

মউক এ সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চার-পাঁচটা গ্রামের লোকজন নিয়ে সালিশ করছে সেখানে প্রায় দুই তিন শত লোক জনের সমাগম ।নেই কোনো সামাজিক দূরত্ব, মানা হচ্ছে না সরকারি বিধি নিষেধ, অবাধে সালিশ বৈঠক চালিয়ে যাচ্ছে।

উপস্থিত লোকজনকে জিজ্ঞাসা করা হলে তারা বলে, আমাদের চিঠি দিয়ে আসতে বাধ্য করেছে এবং এখানে সালিশ করতে কোন টাকা-পয়সা খরচ হয় কিনা জিজ্ঞেস করলে বলেন, অভিযোগ করতে দেড়শ থেকে দুইশ টাকা এবং সালিশ শেষ করতে সর্বনিম্ন প্রতিপক্ষ দ্বয়ের কাছে দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকা নেয়া হয়। গড়ে প্রতি সালিশে তিন থেকে চার হাজার টাকা মানব উন্নয়ন কেন্দ্র মউক এর ইনকাম।

তাই চলমান লকডাউনে পৌর সভার ও ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে সকল বিচার সালিশ বন্ধ রাখলেও বন্ধ করেনি মানব উন্নয়ন সংস্থা মউক এর কার্যক্রম এই বিষয়ে।

মউক পরিচালক সেলিম সাহেবকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন আমাদের কাছে সরকারি প্রজ্ঞাপন আছে কিন্তু তার কাছে সরকারি প্রজ্ঞাপন চাইলে সালিশ করার কোন অনুমতির কোন প্রজ্ঞাপন দেখাতে পারেন নাই।

উল্লেখ্য যে, মউক ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম এখন পর্যন্ত চালু আছে তাকে এ সম্বন্ধে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ক্ষুদ্রঋণ চালু রাখার ব্যাপারে সরকার তাদের চিঠি দিয়েছে। তার ও কোন প্রজ্ঞাপন দেখাতে পারে নাই। উল্লেখ্য বিষয়ে সরকারি ভাবে ব্যাবস্থা ও নজরদারি কামনা করছি।