মহসিন হোসাইনঃ কচুয়ায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে। আজকে রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ডে সকাল ৮ টায় ভোটের কার্যক্রম শুরু হয়, যা চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ৯ টি ওয়ার্ড ১১ টি গ্রাম নিয়ে কচুয়া পৌরসভায় মোট ভোটার রয়েছে ১৯ হাজার ৯৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৯ হাজার ৬ শত ২৩ জন এবং মহিলা ৯ হাজার ৪ শত ৭৬ জন।

সকাল থেকেই কচুয়া পৌরসভায় মোট নয়টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ চলছে। নির্বাচনের কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। ভোটাররা দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে তাঁদের ভোট প্রদান করছেন। এসব কেন্দ্রে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়।

পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটকেন্দ্র ও এর আশপাশের এলাকায় বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া র‌্যাব ও স্ট্রাইকিং ফোর্সও তাদের টহল অব্যাহত রেখেছে।

কচুয়া পৌরসভায় মেয়র পদে ৩ জন, সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ৪৪ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী ৩ জন। সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড সংখ্যা তিনটি, ভোট কক্ষ সর্বমোট ৬০ টি ও অস্থায়ী ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৫ টি। মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেন; আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের নাজমুল আলম স্বপন, বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের হুমায়ূন কবির প্রধান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোবাইল ফোন প্রতীকের আহসান হাবিব প্রানজল।

পৌরসভাতে প্রথম বারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ চলছে। তবে ভোটকেন্দ্র গুলোতে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী ও কাউন্সিলদের সমর্থকদের সরব উপস্থিতি চোখে পড়লেও বিএনপিসহ অন্যান্য মেয়র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের উপস্থিতি তেমন চোখে পড়েনি।

কচুয়া পৌরসভা নির্বাচনের সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কচুয়া উপজেলা নিবার্চন অফিসার আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ভোটগ্রহণ নির্বিঘ্নে করতে মাঠ পর্যায়ে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশসহ চার স্তরের নিরাপত্তা বাহিনী কাজ করছে। এছাড়া ম্যাজিস্ট্রেটদের পুলিশের বেশ কিছু ভ্রাম্যমাণ দল ভোটের মাঠ তদারকি করছে।

এছাড়াও নির্বাচন সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে সম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপায়ন দাস শুভ।