এম হাসান মুসা, শৈলকুপা (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃ শৈলকুপায় চুল ভ্রু কেঁটে গলায় জুতার মালা পড়িয়ে গ্রাম ছাড়া করলো এক কপোত কপোতীকে। এলাকার যুবকরা এই দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার পর এলাকায় হইচই পড়ে যায়। ঝিনাইদহের শৈলকুপার আবাইপুর গ্রামে বুধবার রাতে এ ঘটনা প্রকাশ পায়।

প্রতিবেশী বিশারত বিশ্বাস জানান, সাগর ও নাসিম পরস্পর ঘনিষ্ঠ বন্ধু হওয়ার সুবাদে প্রায়ই সাগর নাসিমের বাড়িতে রাতে অবস্থান করতো। এক পর্যায়ে সাগর ও নাসিমের স্ত্রী কোহিনুর পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। বুধবার রাতে সাগর নাসিমের বাড়িতে অবস্থান করার খবর পেয়ে এলাকাবাসি হাতে নাতে আপত্তিকর অবস্থায় তাদের ধরে ঘরে আটকিয়ে ফেলে। এরপর গ্রামের মাতব্বরেরা সালিশের মাধ্যমে মাথার চুল ও ভ্রু কাঁটার নির্দেশ দেয় এবং তার স্বামী নাসিমকে করতে হবে। যদি নাসির এ কাজ না করে তাহলে তার বাড়িঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হবে।

এ সিদ্ধান্ত নাসিমকে জানানো হলে পরে সে এসে তার স্ত্রী ও পরকিয়ার অনৈতিক কাজে আটক সাগরের মাথার চুল ও ভ্রু কেঁটে দেয় ও তাদের গলায় জুতার মালা পড়িয়ে এলাকায় ঘুরানো হয়। এরপর তাদের অভিভাবকের কাছে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু রাত ২টা পর্যন্ত কোন অভিভাবক না আসলে পরে দুজনে রাতেই এলাকা ত্যাগ করে বলে তিনি জানান। তবে তারা এখন কোথায় আছে কোন পরিবারই তা জানেন না।

নাসিমের মা সালেহা খাতুন জানান, গ্রাম্য সালিশে সিদ্ধান্ত হয় নাসিম তার স্ত্রীর মাথার চুল, ভ্রু কেঁটে গ্রাম ছাড়া না করলে নাসিমকে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না তাই তার ছেলে তার স্ত্রীকে মাথার চুল, ভ্রু ও গলায় জুতার মালা পড়িয়ে বাড়ি ছাড়া করে।

আবাইপুর গ্রামের মাতব্বর রবিউল ইসলাম বলেন, প্রতিবেশীরা আপত্তিকর অবস্থায় বগুড়া গ্রামের চা দোকানদার সাগর ও নাসিমের স্ত্রীকে ঘরে আটকানোর পর আমাদের খবর দিলে আমরা আসি ও সালিশের সিদ্ধান্ত মোতাবেক অনৈতিক কাজের অপরাধে নিজের স্ত্রীর চুল ও ভ্রু তাকে কাঁটতে হবে এবং দুজনকে গলায় জুতার মালা পড়াতে হবে সেই মোতাবেক নাসির কাজটি করে।

হাটফাজিলপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই ফারুক হোসেন জানান, বুধবার রাতে আবাইপুর গ্রামে অনৈতিক কাজের অভিযোগে দুইজনকে একই ঘরে আটকিয়ে রাখা হয়েছে বলে জানার পর তিনি তাদের ক্যাম্পে সোপর্দ করতে বললে গ্রামবাসি তাকে জানান উভয়ের অভিভাবকদের কাছে তুলে দেওয়া হবে।পরে বৃহস্পতিবার ঐ ঘটনার একটি ভিডিও তিনি ফেইস বুকে দেখেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ তাদের কাছে আসেনি।