ইসতিয়াক আহমেদ, শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নের কামারগাঁও নাগরনন্দী এলাকায় সরকারি খাস জায়গা ভোগদখল ও দেয়াল নির্মাণকে কেন্দ্র করে দুই পড়্গইে মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়। আর এ নিয়ে ওই এলাকার মোশারফ হোসেন ছানি মুন্সী (৪০) ও প্রতিবেশী এসএম নাসিমুজ্জামান পল্টু (৬৫) পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেন।

সূত্রমতে জানা যায়, কামারগাঁও মৌজায় ১৮৬২নং খতিয়ানের আরএস ৭৩৭নং দাগে ৩৮ শতাংশ খাস জায়গায় সীমানা প্রাচীর নির্মানকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। জায়গাটির পশ্চিম পাশে এসএম নাসিমুজ্জামান পাকা দেয়াল নির্মাণ কাজ শুরু করলে ওই জায়গা ভোগদখলে থাকা মোশারফ হোসেন ছানি মুন্সী আপত্তি জানায়। আর এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হলে উভয় পক্ষ শ্রীনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

স্থানীয়রা জানায়, মূলত জায়গাটি দীর্ঘদিন যাবৎ ভোগদখল করে আসছে ছানি মুন্সী। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে শ্রীনগর থানা পুলিশ ও স্থানীয় ভূমি অফিসের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে দেয়াল নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন।

এ বিষয়ে মোশারফ হোসেন ছানি মুন্সী দাবী করে বলেন, গত ৩০ বছর যাবৎ জমিটি তিনি ভোগদখল করে আসছেন। ইতিমধ্যে এখানে তিনি একটি পেয়ারার বাগান গড়ে তুলেছেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, প্রতিপক্ষ নাসিমুজ্জামান তার পেয়ারার বাগানটি দখলের পায়তারা করছেন।

এসএম নাসিমুজ্জামান পল্টু বলেন, একই মৌজায় ৪টি দাগে ১১৫ শতাংশের মালিক। আমি জানতাম ওই জায়গা আমার তাই দেয়াল নির্মাণ শুরু করি। সরকার যদি বলে কাজ না করতে তাহলে কাজ বন্ধ রাখবো।

ভাগ্যকুল ভূমি অফিসের তহসীলদার আব্দুল হান্নান এ বিষয়ে জানান, আপাতত কাজ বন্ধ থাকবে। সার্ভেয়ার মেপে সরকারি জমির সীমানা নির্ধারণ করবেন। পরে ব্যক্তিগত জমিতে কাজ করতে পারবে।

এ ব্যাপারে অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীনগর থানার এসআই আকরাম হোসেন জানান, আইন শৃংখলা যাতে অবনতি না হয়, সে জন্য কাজ বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। মিমাংসার পরে কাজ করবে।