বিশ্ব অর্থনীতির বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনায় সব ধরনের যানবাহন কেনায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার।

রোববার (৩ জুলাই) বাজেট অনুবিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ আনিসুজ্জামানের সই করা পরিপত্রে এ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, নতুন/প্রতিস্থাপক হিসেবে সব ধরনের যানবাহন (মোটরযান, জলযান ও আকাশযান) কেনা বন্ধ থাকবে। শুধুমাত্র জরুরি ও অপরিহার্য ক্ষেত্র বিবেচনায় আপ্যায়ন ব্যয়, ভ্রমণ ব্যয়, অন্যান্য মনিহারি, কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক, বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি ও আসবাবপত্র খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, দেশের অভ্যন্তরে প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ খাতে (প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান ছাড়া) বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। এসবে বরাদ্দকৃত অর্থ অন্য কোনো খাতে পুনঃউপযোজন করা যাবে না।

যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে জারিকৃত এ পরিপত্রটি অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছ সাধনের লক্ষ্যে ২০২২-২৩ অর্থবছরে সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে কতিপয় খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এর আগে, ২০২০ সালে সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে নতুন গাড়ি কেনায় নিষেধাজ্ঞা দেয় অর্থ মন্ত্রণালয়, যা ২০২১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত কার্যকর ছিল। পরে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।