খান নাজমুল, সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা বিহারীনগর সাইফুদ্দিন বিশ্বাস কর্তৃক ক্ষমতার দাপটে সোহরার ও রোস্তমের পৈতৃিক সম্পত্তি জবর দখলের চেষ্টা। এতে সোহরাবের পুত্র আফজাল বাদী হয়ে সাতক্ষীরা  সদর থানায় একটি অভিযোগ দ্বায়ের করেন।    

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার ৫ ই মার্চ  ঝাউডাঙ্গা বিহারীনগর সোহরাব বিশ্বাস এর পুত্র আফজাল হোসেন তার কামারবায়সা মৌজার ২৪৬ খতিয়ানের ৫১৬০, ৫১৬১,৫১৬২, ৫১৬৩,৫১৬৪,৫১৬৫ দাগের ৯২ শতক এর ৪৬ শতক জমি জীবনাশের হুমকি ও ফসলের ক্ষতি করে  জবরদখলের চেষ্টা অবহৃত রয়েছে। এতে আফজাল তার  ধান ও কচু ক্ষেতে  সার ছিটানোর সময় বাধাঁ মারপিট ও এই জমিতে আসলে জীবনাশের হুমকি দিয়ে উক্ত স্থান থেকে সরিয়ে দেয়। পরে কচু ও ধান ক্ষেত বিনষ্ট করে। এ বিষয় আফজাল হোসেন বাদী হয়ে ৯ই মার্চ  সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন, বিহারীনগর মৃত জামাল বিশ্বাসের পুত্র   আফসার বিশ্বাস ও সামছুর বিশ্বাস, অহেদ আলী বিশ্বাস এর পুত্র কবির বিশ্বাস, মৃত সোহবান বিশ্বাস এর পুত্র সাইফুদ্দিন বিশ্বাস সহ অজ্ঞাত ৫/৬ জন। 

আফজাল হোসেন এ প্রতিবেদককে আরও জানান, কিছুদিন আগে ঝাউডাঙ্গা ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার মালেক শেখ দু-পক্ষকে ডেকে আমাকে বলেন, জমির অধ্যংশ ছেড়ে দাও তাহলে আমি মীমাংসা করে দিবো। এ বিষয় আমি রাজি না হওয়ায় ১৫ ই মার্চ গভীর রাতে  মেম্বা মালেক শেখ এর মদদে রাতের অধাঁরে কাটা তারের পিলার উচ্ছেদ করা হয়েছে।   

এ বিষয়ে সাইফুদ্দিন বিশ্বাস এর পুত্র আবুল কালাম আজাদ কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন কাগজ যার জমি তার। এ নিয়ে কয়েক বার শালিশ হয়েছে অর্জিনাল জমির পৈত্রিক মালিক সোহরাব ও রোস্তম বিশ্বাশ। 

৪নং ওয়ার্ড মেম্বার মালেক শেখ এর কাছে মুঠোফোন জানতে চাইলে তিনি অস্বীকার করেন। 

সাতক্ষীরা সদর থানায় অভিযোগ তদন্তকারী এ এস আই সাইফুল এর কাছে জানলে তিনি বলেন,  সাইফুদ্দিন বিশ্বাস গংরা ধান কচু ফসল বিনষ্ট করেছে। এ বিষয় আমি তিন বার ঘটনাস্থল  তদন্ত করেছি।  পরবর্তীতে তারা যদি জমিতে যায় তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।