সারাবিশ্বকে নাড়িয়ে দেওয়া গুলশানের হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনার ছায়া অবলম্বনে সিনেমা নির্মাণ করেছেন দেশের খ্যাতিমান নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। সিনেমাটির নাম ‘শনিবার বিকেল’।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এটি প্রদর্শিত হয়েছে এবং ভূয়সী প্রশংসা পেলেও বাংলাদেশে মুক্তিই পায়নি সিনেমাটি।

তবে গত চার বছর ধরে সিনেমাটি সেন্সর বোর্ডে ঝুলছে। মুক্তির আবেদন জানিয়ে সাড়ে তিন বছর আগে আপিলও করেন ফারুকী। তাতে লাভ হয়নি।

বাংলাদেশের সেই হৃদয়বিদারক ঘটনা নিয়ে তৈরি সিনেমা বিদেশে সাড়া ফেলেছে। অথচ নিজ দেশে মুক্তিই পায়নি— বিষয়টিতে হতাশ ও বিরক্ত নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।

বিষয়টি নিয়ে গত ৭ আগস্ট নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন ফারুকী।

সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আজকে সকাল সকাল মনটা খারাপ হয়ে গেল! এ রকম কত সকাল যে আমার গেছে। আমি একটা ছবি বানিয়েছি ‘শনিবার বিকেল’ নামে। যেটি সেন্সর বোর্ড সদস্যরা দেখে বিভিন্ন পত্রিকায় ইন্টারভিউ দিয়ে বললেন, ‘আমরা দ্রুতই সেন্সর সার্টিফিকেট দিয়ে দিচ্ছি’। তার পর এক অদৃশ্য ইশারায় ছবিটার দ্বিতীয় শো করে তারা। এবং তার পর বলে দিল, ছবি ব্যান। আমরা আপিল করলাম। আজকে সাড়ে তিন বছর হলো আপিলের। কোনো উত্তর নাই। এবং আমাদেরও বুঝি কিছু বলার নাই। কারণ তারাপদ রায়ের কবিতার মতো আমাদের কখন সর্বনাশ হয়ে গেছে আমরা টেরও পাইনি।’

দুই বছর আগে ইস্টার্নকিক নামে একটি আন্তর্জাতিক পোর্টালে সিনেমাটির রিভিউ প্রকাশিত হয়।

সে প্রসঙ্গে এ নির্মাতা লিখেছেন, ‘আজ ‘শনিবার বিকেল’-এর ওপর ইস্টার্নকিকের রিভিউটা হঠাৎ সাজেস্ট করল আমাকে অ্যালগোরিদম। এটা আমি আগে পড়ি নাই। পড়ে মনে হইলো আমরা ফুল, পাখি, লতা, পাতা নিয়া ছবি বানাইলে ‘ঠিক আছে’! এমন কিছু বানানো যাবে না, যেখানে আমাদের চেহারা দেখা যায়। কিন্তু আমি তো চিরকাল সেইসব গল্পই বলে আসছি যেখানে আমাদের চেহারা দেখা যায়, সেটা প্রেমের গল্পই হোক আর রাজনীতির গল্পই হোক। আমি তো অন্য কিছু পারি না। তা হলে পাখি সব যে রব করবে, সেটা কি নতুন সুরে করতে হবে? নতুন সুর শিখতে হবে?’