মোস্তাফিজুর রহমান লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ ভারী যানবাহন চলাচলের অনুমতি না থাকলেও লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দোয়ানী এলাকায় তিস্তা ব্যারেজের ওপর দিয়ে চলছে পাথরবোঝাই ট্রাক। প্রতিদিন গড়ে প্রায় সাড়ে তিন শ ট্রাক ব্যারেজের ওপর দিয়ে চলাচল করে। প্রতিটি ট্রাকের ধারণ ক্ষমতা ২৩ থেকে ২৫ টন পাথর। এতে হুমকি তে পড়েছে দেশের বৃহত্তর সেচ প্রকল্পের এই ব্যারেজ।স্থানীয়রা জানান, গত এক বছর তিস্তা ব্যারেজের ওপর দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। গত এক মাস ধরে আবারও পাথরবোঝাই ট্রাক চলতে শুরু করেছে। অজানা কারণে পানি উন্নয়ন বোর্ড ট্রাক চলাচল বন্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

দোয়ানী এলাকার বাসিন্দা মোখলেছুর রহমান বলেন, তিস্তা ব্যারেজের ওপর দিয়ে রাত-দিন সব সময় পাথরবোঝাই ট্রাক চলছে। কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। একটি চক্র টাকার বিনিময়ে এই সুবিধা করে দিচ্ছে। তারা রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত বলে কেউ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার সাহস করে না ট্রাকচালক মনিরুল ইসলাম বলেন, বুড়িমারী স্থলবন্দর থেকে তিস্তা ব্যারেজ কাছে এবং সময় বাঁচায়।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার তিস্তা সড়ক সেতু হয়ে নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুর যেতে প্রায় একশ কিলোমিটার বেশি ঘুরতে হয়। সাড়ে তিনশ থেকে চারশ টাকা দিলেই ব্যারেজ পার হওয়া যায়।তিস্তা সড়ক সেতুর টোল ইজারাদার সুমন খান বলেন, তিস্তা ব্যারেজের ওপর দিয়ে পাথরবোঝাই ট্রাক চলায় টোল আদায় কমেছে। একটি চক্র চালকদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়ে পাথরবোঝাই ট্রাক চলার সুযোগ করে দিচ্ছে। তিস্তা ব্যারেজে পানি উন্নয়র বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) একেএম শামসুজ্জোহা বলেন, তিস্তা ব্যারেজের ওপর দিয়ে শুধু হালকা যান চলাচলের অনুমতি রয়েছে। মাঝে মাঝে ভুট্টা ও ধানবোঝাই কিছু ট্রাক চলে। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মচারীরা তা নজরদারি করেন। পাথরবোঝাই ট্রাক চলার তথ্য আমার কাছে নেই। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।