আব্দুর রহমান, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কের ঝুকিপূর্ণ নলকা সেতুর সংস্কার কাজ চলায় সিরাজগঞ্জের চান্দাইকোনা থেকে টাংগাইলের এলেংগা পর্যন্ত অন্তত ৪৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। ভয়াবহ যানজটে এই মহাসড়কে অচলাবস্থার সৃষ্টি হওয়ায় চরম দুর্ভোগ আর ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এই সড়কে চলাচল কারী পরিবহন চালক ও যাত্রীরা। দ্রুত সময়ের মধ্যে সংস্কার কাজ সম্পূর্ণ করে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হবে জানিয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। সিরাজগঞ্জের সাথে উত্তর ও দক্ষিনাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগের জন্য ১৯৮৮ সালে সিরাজগঞ্জের নলকায় এই ব্রীজটি নির্মান করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। তখন এই মহাসড়কে যানবাহনের চাপ কম থাকলের ১৯৯৯ সালে বঙ্গবন্ধু সেতু চালু হওয়ার পর এই সংযোগ মহাসড়কে দিন দিন বাড়তে থাকে যানবাহনের চাপ। বর্তমানে এই মহাসড়ক দিয়ে উত্তর ও দক্ষিনাঞ্চলে প্রায় ২২ জেলার যানবাহন এই মহাসড়ক ও নলকা বীজ দিয়ে চলাচল করছে। যানবাহনের অতিরিক্ত চাপে ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ে এই ব্রীজটি। ধীর গতিতে যানবাহন পাড়াপাড় হওয়ায় প্রায়ই এই ব্রীজের দুই পাশে যানজটের সৃষ্টি হয়। এ কারনে গত ১২ অক্টোবর থেকে এই ব্রীজের সংস্কার কাজ শুরু করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। সংস্কার কাজ চলায় এক লেন দিয়ে থেমে থেমে পারাপার করা হচ্ছে যানবাহন যে কারনে ১২ তারিখ থেকে ব্রীজের দুই পাড়ে যানবাহনের দীর্ঘ সাড়ি তৈরি হয়। মহাসড়কের যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকায় আজ ভোর রাত থেকে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে। সিরাজগঞ্জের চান্দাইকোনা থেকে টাংগাইলের এলেংগা পর্যন্ত প্রায় ৪৫ কি.মি. যানজট সৃষ্টি হয়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে যানজট। দীর্ঘ সময় রাস্তায় আটকে থেকে চরম দুর্ভোগ আর ভোগান্তির পোহাচ্ছে এই মহাসড়কের চালাচলকারী চালক ও যাত্রীরা। এবিষয়ে জেলা ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সালেকুজ্জামান সালেক, জানান, জনগনের ভোগান্তি কমাতে ও যানজট নিরসনে মহাসড়কে কাজ করছে দুই শতাধিক পুলিশ সদস্য। বীজের সংস্কার কাজ দ্রুত শেষ করার অনুরোধ জানান ট্রাফিক ইন্সপেক্টর। সড়ক ও জনপথ বিভাগের, নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার জানান, দ্রুত সময়ের মধ্যে সংস্কার কাজ শেষ করে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হবে।