আব্দুর রহমান, সিরাজগঞ্জ থেকেঃ
সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ভাটপিয়ারী জঃ রাঃ সারদা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মোনায়েম খান বিদ্যালয় পরিচালনায় অনিয়ম দুর্নীতি  স্বেচ্ছাচারিতা ও একক সিদ্ধান্তে সকল কার্যক্রমের সুযোগ নেয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার মানসহ ম্যানেজিং কমিটি গঠনে স্থবিরতার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয় ও অভিভাবক সুত্রে জানা যায়, ভাটপিয়ারী জঃ রাঃ সারদা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মোনায়েম খান তার একক সিদ্ধান্তে এডহক কমিটি দ্বারা স্কুল পরিচালনা করে অনিয়ম দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতায় টাকা আত্বসাত করছেন। ম্যানেজিং কমিটি গঠনে গড়িমসিতে নিজের আখের গোটানোর পাঁয়তারা করছেন। এতে শিক্ষার মান নিয়ে ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ম্যানেজিং কমিটি বিধি মোতাবেক তৈরী করার জন্য তাগাদা দিলেও তিনি কোন কর্ণপাত করছেন না। ৩১ মে ২০ইং  সালের  দাতা সদস্য অন্তর্ভুক্তকরণের বিষয়ে এলাকার ১১ জন সচেতন ব্যক্তি সোনালী ব্যাংক সিরাজগঞ্জ শাখা ১০০০০-৫১০ সঞ্চয়ী হিসাবে প্রতি জন ২০ হাজার টাকা করে মোট ২ লাখ ২০ হাজার টাকা জমা প্রদান করেন। টাকা জমা নেবার পর সদস্যপদ  না দিয়ে নানা তালবাহানা শুরু করছেন প্রধান শিক্ষক।
এবিষয়ে ভাটপিয়ারী গ্রামের মৃত মাহাতাব উদ্দিন সরকারের ছেলে  মো. হাতেম আলী বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগসহ ৬.১.২০২২ ইং তারিখে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে না মর্মে লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন। তথ্যানুন্ধানে জানা যায়, ইতিপুর্বে প্রধান শিক্ষক মো. মোনায়েম খান  প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত ক্লাসে উপস্থিত থাকেন না। প্রতিষ্ঠানের  টাকা তছরুপ ও নিজের কাছে নিয়মবহির্ভুত প্রায় ৬০ হাজার টাকা রাখা, অভিভাবকদের সাথে অসদাচরণসহ নানা অনিয়মের কারনে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়।
পরবর্তিতে সকল অনিয়মের কথা স্বীকার করে ভুল মার্জনা ও সঠিকভাবে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনায় ৩ শত ননজুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে অঙ্গিকারে তাকে পুনরায় বহাল রাখা হয়। খসড়া ভোটার তালিকায় দাতা সদস্য হিসাবে ২৩ জনকে এবং ছাত্র অভিভাবক সদস্য হিসাবে ভোটার তালিকা সম্পন্ন করা হয়। কমিটি তৈরী করার পুর্বেই তার স্বার্থ হাসিল করতে অদৃশ্য কারনে পুর্নাঙ্গ কমিটি থেকে বিরত থাকার জন্য অপকৌশলে লিপ্ত হবার অভিযোগ রয়েছে। খসড়া ভোটার তালিকা ও রেজুলেশনসহ নির্বাহী অফিসারের নিকট দাখিল করতে বললে সে তা না দিয়ে এডহক কমিটির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনায় বিভিন্ন তালবাহানায় লিপ্ত রয়েছেন।
এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোনায়েম খান বলেন-নির্বাহী অফিসার মহাদয়ের মিটিং বা আমাকে না ডাকলে আমি কি করতে পারি। ইউএনও স্যারের জন্য পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এ ব্যপারে নির্বাহী অফিসার মাশুকাতে রাব্বি বলেন- ভাটপিয়ারী জঃ রাঃ সারদা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের পুর্নাঙ্গ কমিটি করতে সকল কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ বিষয়ে উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান অক্ষুন্ন রাখার আহবান জানিয়েছেন ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবক,শিক্ষকমন্ডলীসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।