বদিউজ্জামান তুহিন, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ নোয়াখালী সেনবাগের ৮ নং বীজবাগ ইউনিয়নকে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তোলার ঘোষণা দিলেন, আওয়ামীলীগ নেতা, মানবিক যোদ্ধা খ্যাত, শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক সেলিম উদ্দিন কাজল।

উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ কাজিরখিলের আজিজিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি, দিগন্ত এয়ার ইন্টারন্যাশনাল এর প্রোপাইটর, ও লিলি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল লিঃ এর পরিচালক, সেলিম উদ্দিন কাজল ১৯৭২ সালের ৩ রা মে সেনবাগের ৮ নং বীজবাগ ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড শ্যামেরগাঁও গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ঐ গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা মরহুম আবুল হাশেম এর জৈষ্ঠ্য পুত্র। 

বীজবাগ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী  অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের দূঃসময়ের প্রধান পৃষ্ঠপোষক, সমাজ সেবক ও দক্ষিণ জনপদে আওয়ামী রাজনীতির প্রান পুরুষ খ্যাত, সেলিম উদ্দিন কাজল রাজনীতিতে সক্রিয় ভাবে পদার্পণ করেন ১৯৯০-১৯৯১ সালের তৎকালীন স্বৈরশাসক এরশাদ সরকার পতন আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। এসময় ১৯৯০ সাল থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে পুরোপুরি  সম্পৃক্ত ছিলেন তিনি।

তারপর ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত প্রায় ১ দশক প্রবাসে অবস্থান করে, একজন রেমিট্যান্স যোদ্ধা হিসেবে সমাজের হতদরিদ্রের মাঝে বিভিন্ন সময়ে বিরতিহীন ভাবে  দান -অনুদান প্রদান করে সহযোগিতা করে আসছেন এই সেলিম উদ্দিন কাজল। 

অতঃপর ২০১০ সাল হতে অদ্যবধি পর্যন্ত তার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান দিগন্ত এয়ার ইন্টারন্যাশনাল ও লিলি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল লিঃ এর পরিচালনার পাশাপাশি নিজ এলাকার অসহায় হতদরিদ্রের দূঃখ কষ্ট  দূরীভূত করনে সমাজসেবায় একান্ত ভাবে মনোনিবেশ করেন তিনি।

রাজনীতির পাশাপাশি সমাজসেবার কারনে ইতিমধ্যেই বীজবাগ ইউনিয়ন তৃনমূলে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন এই মানবিক যোদ্ধা। সেই সাথে বীজবাগ ইউনিয়নে মাঠ পর্যায়ে  গড়ে উঠেছে তার পক্ষে ব্যাপক গনজোয়ার ও জনসমর্থন। 

বিগত ৩ বছর যাবত তিনি ৮ নং  বীজবাগ ইউনিয়নে ওয়ার্ড  আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারণ  সম্পাদকদের মাধ্যমে দূঃস্থদের জন্য ধারাবাহিকভাবে শাড়ী – লুঙ্গি বিতরণ, বিভিন্ন জাতীয় দিবসে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অনুদান প্রদান,ইউনিয়নের বিভিন্ন বীরমুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা ক্ষেত্রে অনুদান প্রদান, ইউনিয়ন ছাত্রলীগকে ক্লাব ভিত্তিক জার্সি ও অর্থনৈতিক সহায়তা প্রদান, অসংখ্য গরীব মেয়েদের বিবাহের ক্ষেত্রে সহায়তা,অসুস্থদের চিকিৎসার জন্য সহায়তা, অর্ধশতাধিক হতদরিদ্রকে ঘর নির্মাণে ঢেউটিন প্রদান, শারদীয় দূর্গাপু্ঁজার সময় বীজবাগ ইউনিয়নের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মাঝে ৪ শতাধিক শাড়ী ও লুঙ্গি বিতরণ, মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে প্রথম ধাপে মাক্সও সাবান বিতরণ, দ্বিতীয় ধাপে সহস্রাধিক পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ও শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করে ইতিমধ্যেই সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছেন সেলিম উদ্দিন কাজল। 

এছাড়াও সেলিম উদ্দিন কাজল এর ব্যাক্তিগত অর্থায়নে শ্যামের গাঁও,বীজবাগ, বীরনারায়নপুর,কাজিরখিল সহ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের  রাস্তায় ইট ফেলে সংস্কার,ফকির হাট সংলগ্ন ইসলামিক ফাউণ্ডেশন এর পরিচালনায় মাদ্রাসা ভিত্তিক শিশু ও গনশিক্ষা কার্যক্রম প্রতিষ্ঠানের ঘর নির্মাণে সহায়তা প্রদান সহ অসংখ্য মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, সরকারি- বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংস্কার ও নির্মাণ কাজে সহযোগিতা প্রদান করেন তিনি। অসহায় মানুষের সেবা ও সামাজিক গতিশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গ্রাম্য ডাক্তার (পল্লী চিকিৎসক) দের নিয়ে মতবিনিময় সভা, বিজয়ের মাসে নিজ অর্থায়নে  ইউনিয়নের সকল বীরমুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও শাড়ী লুঙ্গি, নগদ অর্থ বিতরণ করেন তিনি। 

উল্লেখ্য, সেলিম উদ্দিন কাজল এর পিতা বীরমুক্তিযোদ্ধা মরহুম আবুল হাসেম, ১৯৬৮ সাল থেকে মৃত্যুর পূর্ব মূহুর্ত পর্যন্ত স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি ৪নং ওয়ার্ড, (শ্যামেরগাঁও) আওয়ামীলীগের দায়িত্বও পালন করেন সুনামের সহিত।তারি ধারাবাহিকতায় বাবার  যোগ্য উত্তরসূরী সেলিম উদ্দিন কাজল নিজেকে পুরোপুরি জড়িয়ে ফেলেন সমাজসেবা ও আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে। 

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে সেলিম উদ্দিন কাজলকে দেখতে চায় বীজবাগ ইউনিয়নের তৃনমুল আওয়ামীলীগ। 

এ প্রসঙ্গে আওয়ামীলীগ নেতা  সেলিম উদ্দিন কাজল গণমাধ্যমকে জানান, দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি আমি সর্বদা শ্রদ্ধাশীল। দল যদি আমাকে মনোনীত করেন। আমি নির্বাচন করবো।পাশাপাশি যদি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারি, তাহলে ৮নং বিজবাগ ইউনিয়নকে মাদক, সন্ত্রাস ও দূর্নীতিমুক্ত একটি মডেল ইউনিয়নে রূপান্তর করতে সর্বাত্মক  চেষ্টা করে যাবো। পাশাপাশি মৃত্যুর পূর্বমুহুর্ত পর্যন্ত ৮ নং বীজবাগ ইউনিয়নের সাধারণ জনগণের সুখে, দুঃখে সকল কাজে নিজেকে সবসময় বিলিয়ে দিবো, ইনশাআল্লাহ।