বর্তমানে ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রা একটি সাধারণ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সারাদিন কর্মব্যস্ততার পরও রাতে ঘুম আসে না অনেকের। জেগে থাকেন গভীর রাত পর্যন্ত।অনিদ্রার কবল থেকে মুক্তি পেতে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। তবে কেউ টানা কয়েক বছর একদম ঘুমালে সেটা অবাক করার মতো ঘটনা বৈকি।

গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের হেনান প্রদেশের বাসিন্দা লি ঝানাইং টানা ৪০ বছর এক সেকেন্ডের জন্যও ঘুমাতে পারেননি। ৫ বছর বয়সে শেষবারের মতো ঘুমিয়ে ছিলেন ৪৫ বছর বয়সী এই নারী।

লি ঝানাইংয়ের স্বামী লিউ সুকুইন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, বিয়ের পর থেকে তিনি তার স্ত্রীকে ঘুমাতে দেখেননি। সময় কাটানোর জন্য তার স্ত্রী রাতের বেলা ঘরের কাজ করেন বলে জানিয়েছেন লিউ সুকুইন। এমনকি স্ত্রী যেন ঘুমাতে পারেন এ জন্য ঘুমের ওষুধও কিনে দিয়েছেন লিউ সুকুইন। কিন্তু সেসব কোনো কাজেই আসেনি।

তবে এই সমস্যার পরও প্রতিবেশীদের কাছে দারুণ জনপ্রিয় লি ঝানাইং। প্রতিবেশীদের অনেকেই রাতে লি ঝানাইংয়ের সঙ্গে তাস খেলতে আসেন। তবে তারা ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়লেও জেগে থাকেন লি ঝানাইং।

নিজের এই অদ্ভুত রোগ নিয়ে গত কয়েকবছরে অনেকবার চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়েছেন লি ঝানাইং। তবে চিকিৎসকরা তার মধ্যে অস্বাভাবিক কিছুই খুঁজে পাননি। তবে সম্প্রতি বেইজিংয়ের একটি মেডিকেল সেন্টারের চিকিৎসকরা তার এই চার দশক ব্যাপী না ঘুমানোর রহস্যের সমাধান করেছেন।

ওই মেডিকেল সেন্টারের চিকিৎসকদের একটা দল বিশেষ সেন্সরের সাহায্যে ৪৮ ঘণ্টা তাকে পর্যবেক্ষণে রেখেছিলেন। ৪৮ ঘণ্টা লি ঝানাইংয়ের ব্রেনওয়েড পর্যবেক্ষণ করে দেখতে পান তিনিও আসলে ঘুমান। কিন্তু তার ঘুম সাধারণ মানুষের মতো নয়। সাধারণ মানুষ যেমন বিছানায় শুয়ে চোখ বন্ধ করে ঘুমায়, লি বিছানায় না শুয়ে কিংবা চোখ বন্ধ না করেও ঘুমাতে পারেন। এমনকি স্বামীর সঙ্গে কথা বলার সময়ও লি ঝানাইং হালকা ঘুম সেরে নেন বলে তার ব্রেনওয়েড বিশ্লেষণ করে দেখেছেন চিকিৎসকরা।