শামীম হায়দার, বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধিঃ ৭০-৮০ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমানের উপস্হিতি ও এবাদত বন্দেগী  এবং আল্লাহর সন্তুষ্টির আদায়ের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো ঐতিহাসিক মাহফিল। জন্ম মৃত্যু  বিয়ে  ধর্ম পরিবর্তন ইসলামিক আন্দোলন ইত্যাদি বিষয়াদি ছিল এবারের আয়োজনে নজর কাড়ার মতো। 

বিশেষ এক স্বচ্ছাসেবক টিমের মাধ্যমে যানা যায় প্রায় ১কোটির কাছাকাছি ধর্ম প্রাণ মুসলমান দের আগমন ঘটে। মহামারি করনার কবল থেকে পরিত্রাণের জন্য চলে মোনাজাত। চরমোনাই এমন একটি স্হান যার ফজিলত অপরিহার্য। কোন প্রকার রাজনৈতিক আলোচনা অশ্লীল কোন কথা বার্তা ও কোন প্রকার  দুর্ঘটনা ব্যাতিরেকে আল্লাহর অষেশ মেহেরবানীর মধ্যে দিয়ে শেষ হলো ৯৭ তম বাছরিক মাহাফিল।৪ দিন ইবাদাত বন্দেগি শেষে ঘর মুখো মানুষের ঢল নামে। নদী ও সড়ক পথে থাকে উপচে পড়া ভিড়।

এবার চরমোনাই মাহাফিলে এসে মৃত্যু বরন করে মোট ১৩ জন।হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম ধর্ম গ্রহন করেন ১৭ জন।বরিশালের ৩ জন।ভোলা ৮ জন।চাঁদপুরের৬ জন।সবার মৃত্যু হয় স্বাভাবিক। 

আখেরী মোনাজাতে উপস্থিত ছিল পীর সাহেব চরমোনাই এর সকল উত্তরসূরী ও দেশ বরন্য আলেম ওলামা গণ।